kalerkantho

সোমবার । ২৯ আষাঢ় ১৪২৭। ১৩ জুলাই ২০২০। ২১ জিলকদ ১৪৪১

শ্রীপুরে নামের মিল থাকায় নির্দোষ ব্যক্তি গ্রেপ্তার

মুক্তি পেলেন সেই রফিকুল

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, গাজীপুর    

২৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুক্তি পেলেন সেই রফিকুল

মুক্তির পর পরিবারের সঙ্গে রফিকুল

গাজীপুরের শ্রীপুরে পুলিশের ভুলে বিনা অপরাধে কারাভোগকারী চা দোকানি রফিকুল ইসলাম কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার গাজীপুরের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শেখ নাজমুন নাহার আদেশ দেওয়ার পর তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়।

এর আগে গত বুধবার আদালত এ ঘটনায় শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে কারণ ব্যাখ্যা চেয়েছিলেন।

রফিকুল ইসলামের আইনজীবী উমর ফারুক জানান, গতকাল থানা পুলিশের প্রতিবেদন আদালতে জমা দেওয়া হয়। শুনানির পর সকাল সোয়া ১১টার দিকে তাঁকে মুক্তির আদেশ দেন আদালত। আদেশের কপি বিকেলে কারাগারে পৌঁছার পর সন্ধ্যা ৭টার দিকে মুক্তি পান রফিকুল।

এর আগে রফিকুল ইসলামের মুক্তির অপেক্ষায় দুপুর থেকে গাজীপুর জেলা কারাগারের সামনে অশ্রুসিক্ত চোখে ঠাঁই দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করেন তাঁর স্বজনরা। সন্ধ্যায় মুক্তি পাওয়ার পর রফিকুলকে জড়িয়ে তাঁরা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

মুক্তি পাওয়ার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন রফিকুল ইসলামও। ওই সময় তিনি বলেন, ‘আমারে হ্যান্ডকাফ পরাইয়া গাড়িতে তোলার সময় পুলিশরে যে কত অনুরোধ করছি। চিক্কার (চিৎকার) পাইড়া কইছি আমি

কোনো আসামি না। একটু খোঁজ নিয়া দেহেন স্যার। কিন্তু তারা (পুলিশ) হুনলো না। হুদাই (শুধু শুধু) সাতটা দিন জেল খাটছি আমি।’

নিয়ম বহির্ভূতভাবে করাতকল স্থাপন ও অবৈধভাবে গজারি কাঠ চেরাই করায় ২০১৫ সালের ৮ জুলাই গাজীপুর বন আদালতে একটি মামলা করেন তখনকার শ্রীপুর সদর বনবিট কর্মকর্তা মো. সহিদুর রহমান। মামলায় আসামি করা হয় করাতকল মালিক মো. রফিকুল ইসলামকে। ওই মামলায় আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

এ পরোয়ানায় শ্রীপুর থানার এএসআই কফিল উদ্দিন ও তোফায়েল আহমেদ গত শুক্রবার চা দোকানি রফিকুলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠান। পরে আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা