kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

১৪ জেলায় বইছে শৈত্যপ্রবাহ

সর্বনিম্ন তাপমাত্রা শ্রীমঙ্গলে ৬ ডিগ্রি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উত্তরাঞ্চলসহ দেশের ১৪টি জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে মৃদু থেকে মাঝারি মাত্রার শৈত্যপ্রবাহ। উত্তরের রংপুর, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, লালমনিরহাটের পরিস্থিতি তুলনামূলক নাজুক। ওই সব জেলায় তাপমাত্রা ৭ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে অবস্থান করছে। দুই দিন ধরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বিরাজ করছে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে। গতকাল বৃহস্পতিবার এখানে তাপমাত্রা নেমে গেছে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

দুই দিন ধরে বয়ে যাওয়া শৈত্যপ্রবাহ আরো দুই থেকে তিন দিন থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। আবহাওয়া অফিসের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ জানান, রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট বিভাগসহ টাঙ্গাইল, রাঙামাটি ও নওগাঁ জেলার ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। চলমান শৈত্যপ্রবাহ আরো কয়েক দিন অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, উপমহাদেশীয় উচ্চ চাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তত্সংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। খুলনা ও রাজশাহী বিভাগে আজ শুক্রবার তাপমাত্রা আরো কমবে। দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে।

আবহাওয়া অফিসের তথ্য থেকে জানা গেছে, গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল কক্সবাজারের টেকনাফে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দেশজুড়ে চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে একটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে গেছে। দ্বিতীয় সপ্তাহে আরেকটি শৈত্যপ্রবাহ ছিল। এখন চলছে তৃতীয় শৈত্যপ্রবাহ। গতকাল ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৩ দশমিক ৬ ও সর্বনিম্ন ১৩ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

স্থানীয় প্রতিনিধিরা জানান, কয়েক দিনের টানা শৈত্যপ্রবাহ ও কনকনে ঠাণ্ডায় কাহিল হয়ে পড়েছে কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, চুয়াডাঙ্গাসহ আশপাশের জেলাগুলোর জনজীবন। গতকাল সকাল ৯টায় কুড়িগ্রামে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর নীলফামারীতে সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া কার্যালয় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করে ৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা চলতি মৌসুমে জেলায় সর্বনিম্ন। চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামাদুল হক জানান, গতকাল এখানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা