kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ কার্তিক ১৪২৭। ৩০ অক্টোবর ২০২০। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

এক বছর পর তিন আসামি গ্রেপ্তার

মাদক কারবারে বাধা পেয়ে হত্যা করা হয় রাকিবকে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর বনানীর কড়াইল বস্তিতে দীর্ঘদিন ধরে চলছিল ইয়াবার পাশাপাশি হেরোইনসহ অন্যান্য মাদকের কারবার। এতে আসক্ত হয়ে পড়া কয়েক শিক্ষার্থীর অভিভাবক একদিন ছাত্রলীগ নেতা রাকিব হোসেন হামজার কাছে এলাকা থেকে মাদক কারবারিদের বিতাড়িত করতে সহায়তা চান। রাকিব মাদকের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন। আর এটাই তাঁর জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়। বস্তির একদল দুর্বৃত্ত তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করে।

এক বছরেরও বেশি সময়ের আগের এ ঘটনায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হলেও হত্যায় জড়িতদের ধরতে পারছিলেন না আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। সম্প্রতি এ হত্যা মামলায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মাধ্যমে হত্যারহস্য উদ্ঘাটনের দাবি করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা, পিবিআইয়ের পরিদর্শক মনিরুজ্জামান গতকাল শনিবার রাতে কালের কণ্ঠকে বলেন, কড়াইল বস্তির একটি সংঘবদ্ধ অপরাধীচক্র ছাত্রলীগ নেতা রাকিব হোসেন হামজাকে খুন করে বলে তদন্তে জানা গেছে। এ ঘটনায় বনানী থানায় দায়ের করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি শফিকুল ওরফে বোচা সজীব, আতাউর রহমান বিল্লাল ও জসিম নামের তিন দুর্বৃত্তকে সম্প্রতি গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নিয়ে এসব তথ্য জানা যায়।

তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এই মামলার আরো কয়েক আসামি এখনো পলাতক। গ্রেপ্তার হওয়া আসামিরা কারাগারে রয়েছে। তারা এখনো স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়নি। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি ও অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের শনাক্ত করার পর এই মামলার চার্জশিট প্রদান করা হবে।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৭ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১২টার দিকে বনানীর ১৯ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সভাপতি রাকিব হোসেন হামজাকে কড়াইল বস্তি এলাকায় হত্যা করা হয়। মামলার বাদী রাকিবের বাবা আলতাফ হোসেন বলেন, বিএফ শাহীন কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর তাঁর ছেলে তেজগাঁও কলেজ থেকে মার্কেটিং বিভাগে বিবিএ সম্পন্ন করেন। পরে মাস্টার্সে সরকারি তিতুমীর কলেজে মার্কেটিং বিভাগে ভর্তি হন। অন্যায় দেখলেই তিনি প্রতিবাদ করতেন।

 

মন্তব্য