kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

ভারতে গিয়ে স্ত্রীকে খুন করে পালিয়ে এলেন স্বামী!

বনগাঁর হোটেলে বাংলাদেশি গৃহবধূর লাশ

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি   

১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারতের দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার বনগাঁ শহরের একটি আবাসিক হোটেল (লজ) থেকে আসমা বেগম (৪০) নামের এক বাংলাদেশির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাঁকে ওড়নায় ফাঁস লাগিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করছে পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ। খুনের পর আসমার স্বামী আবুল কাশেম বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন বলে জানা গেছে।

বনগাঁ থানার পুলিশ ও হোটেল সূত্রে জানা গেছে, যশোর কোতোয়ালি থানার হাসপাতাল এলাকার আবুল কাশেম, তাঁর স্ত্রী আসমা বেগম ও আসমার খালা মনোয়ারা বেগম বুধবার বাংলাদেশ থেকে বৈধ পাসপোর্ট-ভিসা নিয়ে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে যান। তাঁরা ভারতের বনগাঁ শহরের বাটার মোড়ের শ্যামাপ্রসাদ লজের তিন তলায় দুটি ঘর ভাড়া নেন। একটি ঘরে আসমা ও তাঁর খালা মনোয়ারা ছিলেন। অন্য ঘরে কাশেম একা ছিলেন। লজের এক কর্মী বলেন, ‘ওঁরা আগেও কয়েকবার এই লজে এসেছেন। দিন কয়েক কাটিয়ে চলেও গিয়েছেন।’

হোটেলের কর্মচারীরা পুলিশকে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকালে তাঁরা স্বামী-স্ত্রীকে একসঙ্গে হোটেলের ঘর থেকে নিচে নামতে দেখেছেন। পরে তাঁরা ঘরে উঠে যান। এরপর সকাল ৮টা নাগাদ কাশেম হোটেল থেকে চাবি নিয়ে বেরিয়ে যান। দুপুর পর্যন্ত কাশেম না ফেরায় কর্মচারীদের সন্দেহ হয়। এক কর্মচারী হোটেলের ঘরে গিয়ে দেখেন, কাশেমের ঘরের দরজা বাইরে থেকে বন্ধ। কাচের জানালা দিয়ে তিনি দেখেন, আসমা ঘরের মেঝেতে পড়ে আছেন। খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। পুলিশ গিয়ে তালা ভেঙে ঢুকে দেখে আসমা মৃত অবস্থায় পড়ে আছেন। গলায় ওড়নার ফাঁস। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বনগাঁ মহকুমা হাসপাতালে পাঠিয়েছে। আসমার স্বামী আবুল কাশেম বৃহস্পতিবার সকালে পেট্রাপোল দিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে গেছেন বলে জানতে পেরেছে স্থানীয় পুলিশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা