kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

এমপিদের প্রচার নিষিদ্ধে পরিপত্র চান ইসি মাহবুব

‘এখন বিরোধিতা করছেন বিধিমালা প্রণয়নকারীরাই’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের প্রচারে নিষেধাজ্ঞাসংক্রান্ত বিধিমালা প্রণয়নকারীরাই এখন এর বিরোধিতা করছেন বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মাহবুব তালুকদার। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক উল্লেখ করে নির্বাচনী প্রচারে মন্ত্রী-এমপিদের অংশগ্রহণে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি স্পষ্ট করতে পরিপত্র জারির দাবি জানিয়েছেন তিনি। বলেছেন, সিটি নির্বাচনে আচরণবিধি কঠোরভাবে পরিপালন নিশ্চিত করতে না পারলে নির্বাচন কমিশন আস্থার সংকটে পড়বে।

গতকাল সোমবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও দুই সিটির রিটার্নিং অফিসারদের কাছে পাঠানো এক আন-অফিশিয়াল (ইউও) নোটে ইসি মাহবুব এই দাবি জানান। তিনি ইউও নোটটির অনুলিপি বাকি তিনজন নির্বাচন কমিশনারের কাছেও পাঠান। পরে নির্বাচন ভবনের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ইউও নোটটি পাঠ করে শোনান তিনি।

গত ৯ জানুয়ারির ইউও নোটের প্রসঙ্গ টেনে নতুন ইউও নোটে মাহবুব তালুদকার বলেন, ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নির্বাচনী প্রচার ও কার্যক্রমে সংসদ সদস্যদের (এমপি) অংশগ্রহণ নিয়ে আমি উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলাম। মন্ত্রী ও এমপিদের নির্বাচনী প্রচার এবং নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ নিয়ে সেই উদ্বেগ বর্তমানে আরো ঘনীভূত হয়েছে। কারণ গত কয়েক দিনে বিধিমালা নিয়ে নানা প্রকার বিভ্রান্তি লক্ষ করা যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, বিদ্যমান আচরণবিধি অনুযায়ী নির্বাচন সম্পর্কিত যেকোনো কমিটিতে মন্ত্রী ও এমপিদের অংশগ্রহণের সুযোগ নেই। এই নির্বাচনী কার্যক্রম ঘরে বা বাইরে যেকোনো স্থানে হতে পারে। এ বিষয়ে আচরণ বিধিমালা, ২০১৬-এর বিধান অত্যন্ত সুস্পষ্ট। সর্বাধিক দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে, এই বিধিমালা যাঁরা প্রণয়ন করেছেন তাঁরাই এখন এর বিরোধিতা করছেন।

বিভ্রান্তি নিরসনে পরিপত্র জারি করা অত্যাবশ্যক উল্লেখ করে মাহবুব তালুকদার ইউও নোটে বলেন, আচরণ বিধিমালা সম্পর্কে যাতে কোনো প্রকার বিভ্রান্তির অবকাশ না থাকে সে জন্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে সুস্পষ্ট নির্দেশনাসহ একটি পরিপত্র জারি করা যেতে পারে। নইলে এসব বিভ্রান্তি সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে।

এর আগে গত ৯ জানুয়ারি দেওয়া ইউও নোটে ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের প্রচারে মন্ত্রী ও এমপিদের অংশগ্রহণের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে মাহবুব তালুকদার বলেছিলেন, মন্ত্রী-এমপিরা প্রচারণায় অংশ নিলে নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বিনষ্ট হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা