kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাচ্ছেন আরো ১০ হাজার

ফি সংগ্রহে ৩৪ ব্যাংক মনোনয়ন

মোশতাক আহমদ   

১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাচ্ছেন আরো ১০ হাজার

ফাইল ছবি

চলতি বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে ১০ হাজার। গত বছর গিয়েছিলেন সাত হাজার ১৯৮ জন। এই হিসাবে এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে পারবেন ১৭ হাজার ১৯৮ জন। সৌদি আরবের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশের মোট হজযাত্রীর সংখ্যা বেড়েছে ১০ হাজার। বাড়তি এই হজযাত্রীরাই সরকারি ব্যবস্থাপনায় যুক্ত হয়েছেন। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনায় হজ পালনের সুযোগ করে দিতে সরকারি কোটা বাড়ানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন।

চলতি বছর বর্ধিত ১০ হাজারসহ বাংলাদেশ থেকে হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন এক লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন ১৭ হাজার ১৯৮ জন আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন এক লাখ ২০ হাজার হজযাত্রী।

গত বছর হজ কার্যক্রম শেষে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ ঘোষণা করেছিলেন, ২০২০ সালের পবিত্র হজে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীর সংখ্যা অন্তত ৫০ শতাংশ করা হবে। এ নিয়ে বেসরকারি হজ এজেন্সিগুলোর মধ্যে উদ্বেগ দেখা দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীর সংখ্যা ১০ হাজার বাড়ায় এজেন্সিগুলোর মধ্যে স্বস্তি ফিরে আসে।

সৌদি সরকারের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী এ বছর হজযাত্রীদের আরো সুযোগ-সুবিধা বাড়বে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। আগামী ৩১ জুলাই পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে) হবে।

প্রাক-নিবন্ধন আহ্বান : চলতি বছর হজে যেতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের জরুরি ভিত্তিতে প্রাক-নিবন্ধনের আহ্বান জানিয়েছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। গত ৮ জানুয়ারি ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব আব্দুল্লাহ আরিফ মোহাম্মদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, এ বছর বাংলাদেশ থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৭ হাজার ১৯৮ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজার ব্যক্তি পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পাবেন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে গমনেচ্ছুক ব্যক্তিদের জরুরি ভিত্তিতে প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করার অনুরোধ করা যাচ্ছে।

পুরো দেশে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সব বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, বায়তুল মোকাররমে ইসলামী ফাউন্ডেশনের কার্যালয়, আশকোনা হজ অফিস এবং সচিবালয়ের ৬ নম্বর ভবনের ১৫২১ নম্বর কক্ষে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন করা যাবে। হজযাত্রীরা নিজেরাও https://prp.pilgrimdb.org/  ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করতে পারবেন। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীরা তাঁদের পছন্দমতো এজেন্সির কার্যালয় থেকে প্রাক-নিবন্ধন করতে পারবেন।

এরই মধ্যে গত ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত সরকারি ব্যবস্থাপনায় চার হাজার ২৫৬ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ৯২ হাজার ২৭ জন প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন। নির্দিষ্ট সময়ের পর চূড়ান্ত নিবন্ধন শেষে এ কোটা খালি থাকলে পর্যায়ক্রমে হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন। বাকিরা আগামী বছরের জন্য অপেক্ষমাণ থাকবেন। সরকারি ব্যবস্থাপনার কোটা শেষ হলেও একইভাবে আগামী বছরের জন্য অপেক্ষমাণ রেখে প্রাক-নিবন্ধন কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

এদিকে ২০২০ সালের সরকারি ও বেসরকারি হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন ও নিবন্ধন ফির অর্থ সংগ্রহের জন্য ৩৪টি ব্যাংককে মনোনয়ন দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা