kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

পুলিশ সপ্তাহের তৃতীয় দিন

আইজি ব্যাজ পেলেন ৬০৫ পুলিশ সদস্য

আইন-শৃঙ্খলা রিভিউ কমিটি বাতিল দাবি

রেজোয়ান বিশ্বাস   

৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



৬০৫ জন পুলিশ সদস্যকে আইজি ব্যাজ প্রদান করা হয়েছে। পুলিশ সপ্তাহের তৃতীয় দিনে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১১টায় রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে শিল্ড প্যারেড পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যদের এই ব্যাজ পরিয়ে দেন। অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার এবং চোরাচালান প্রতিরোধে গত বছরের প্রশংসনীয় ও ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে তাঁদের এ পুরস্কার দেওয়া হয়।

এদিকে জেলা আইন-শৃঙ্খলা রিভিউ কমিটি ফৌজদারি মামলা তদন্তে অতিমাত্রায় প্রভাব বিস্তার ও হস্তক্ষেপ করছে উল্লেখ করে এই কমিটি বাতিলের দাবি তুলেছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। গতকাল সকালে আইজিপি ব্যাজ অনুষ্ঠান-পরবর্তী সন্ধ্যায় রাজারবাগ পুলিশ লাইনস অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে এই দাবি তোলেন ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা।

আইজি ব্যাজ প্রদান বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৯ সালের সাফল্য বিবেচনা করে প্রত্যেক ক্যাটাগরিতে তিন ইউনিটকে পুরস্কৃত করা হয়। আইজিপি ব্যাজপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্যদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘দুই লাখ ১২ হাজার পুলিশ সদস্যের মধ্যে প্রশংসনীয় ও ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ৬০৫ জন আইজি ব্যাজ পেয়েছেন।’

অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আইজিপি পুলিশের সাংগঠনিক কাঠামো ভবিষ্যত্মুখী করার জন্য একটি কমিটি গঠনের অনুরোধ জানান। বর্তমানে নিম্ন আদালতে ৩৫ লাখ মামলা ঝুলে আছে। এসব মামলা নিষ্পত্তিতে পুলিশ কী করতে পারে—এ প্রশ্ন তাঁদের। এসব মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ার জন্য কে দায়ী বা কেন এগুলো নিষ্পত্তি হচ্ছে না, সবার আগে তা জানা প্রয়োজন বলে মত দিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। গতকাল পুলিশ সপ্তাহের তৃতীয় দিন বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে একান্ত এক বৈঠকে এসব প্রশ্ন তোলেন পুলিশ কর্মকর্তারা। সভায় ১০ পুলিশ সুপারসহ ১৯ কর্মকর্তা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন। মামলা নিষ্পত্তির প্রসঙ্গ ছাড়াও আরো বেশ কিছু প্রসঙ্গে আলোচনা করেন পুলিশ কর্মকর্তারা। মাদক নিয়ন্ত্রণে পুলিশ প্রধান ভূমিকায় থাকা সত্ত্বেও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ‘মাদক নির্মূল কমিটিতে’ পুলিশ বিভাগের দায়িত্ব উপেক্ষিত থাকার অভিযোগ করেন তাঁরা। বৈঠকে পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ৩৫ লাখ মামলা নিম্ন আদালতে ঝুলে আছে। মামলা নিষ্পত্তিতে পুলিশ কী করতে পারে? মাদক, আইসিটি, নারী নির্যাতন মামলাসহ অনেক মামলায়ই তদন্তের নির্ধারিত সময় বেঁধে দেওয়া আছে। পুলিশ তদন্ত শেষ করলেও যদি মামলা ঝুলে থাকে পুলিশের দায় কোথায়?

সম্মেলনে র‌্যাব মহাপরিচালক ড. বেনজীর আহমেদ আইন-শৃঙ্খলা রিভিউ কমিটিকে অধিকতর আইনসম্মত করার জন্য একটি সেমিনার করার আহবান  জানান। সম্মেলনে উপস্থিত একাধিক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে এসব তথ্য জানিয়ে বলেছেন, আইজিপি, র‌্যাবের ডিজি ছাড়াও সম্মেলনে সিআইডি প্রধান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন জাতির জনকের সমাধিসৌধের নিরাপত্তার জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রেরিত ২০০ সদস্যের ফোর্সের চাহিদা না কেটে অনুমোদনের অনুরোধ করেন। এতে সমর্থন করে অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের প্রধান আবুল কাসেম ওই ইউনিটের জায়গার জন্য মন্ত্রণালয়ের প্রেরিত প্রস্তাবটি তাড়াতাড়ি অনুমোদনের অনুরোধ করেন। সিআইডির ডিআইজি শাহ আলম ফৌজদারি মামলায় যথাযথ সমন্বয়ের জন্য পুলিশের হাতে প্রসিকিউশন ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি মহানগরের থানাগুলোয় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ওসি হিসেবে নিয়োগের অনুরোধ করেন। ডিএমপির অতিরিক্ত ডিআইজি শাহ মিজান শাফিউর রহমান বৈষম্যহীন সমাজ গঠনে ২৬শে মার্চ ও ১৬ই ডিসেম্বর নিরাপত্তা কমিটিতে আইজিপিকে অন্তর্ভুক্তির অনুরোধ জানান। পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি আক্তারুজ্জামান পুলিশের সাংগঠনিক কাঠামো ভবিষ্যত্মুখী করার অনুরোধ করেন।

সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি) ফরিদ উদ্দিন সম্মেলনে সম্প্রতি গঠন করা আইন-শৃঙ্খলা রিভিউ কমিটি বাতিলের দাবি করেন। তাঁর এই বক্তব্যের সমর্থন করে কুমিল্লার এসপি সৈয়দ নুরুল ইসলাম মাদক বিস্তার রোধে জাতীয় কমিটিতে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এবং জেলা কমিটিতে পুলিশ সুপারকে সম্মানের সঙ্গে অন্তর্ভুক্তির অনুরোধ করেন। নারায়ণগঞ্জের এসপি জায়েদুল আলম জেলা পর্যায়ে বিভিন্ন কমিটিতে সরাসরি এসপিকে না রেখে প্রতিনিধি রাখার আহবান  জানান। খুলনার এসপি এস এম শফিউল্লাহ জেলা পর্যায়ে পুলিশের সন্তানদের স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা ও আবাসন নিশ্চিতের দাবি তোলেন। কক্সবাজারের এসপি এ বি এম মাসুদ হোসেন মাদক নিরাময়ে জেলা পর্যায়ে সরকারি হাসপাতালে মাদক নিরাময় বেডের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করেন। দুদকে কর্মরত এসপি আজাদ খান পুলিশের দীর্ঘদিনের তদন্তকাজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে দুদকে কমিশনার, মহাপরিচালক ও পরিচালক পর্যায়ে পুলিশ কর্মকর্তা নিয়োগের অনুরোধ করেন। সাতক্ষীরার এসপি মোস্তাফিজুর রহমান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সহকারী পুলিশ সুপারদের জন্য গাড়ি সরবরাহের অনুরোধ করেন।

এ ছাড়া সভায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জননিরাপত্তা, আইন-শৃঙ্খলা, মামলা তদন্ত এবং পুলিশের সাংগঠনিক কাঠামো নিয়ে আলোচনা হয়। এসব দাবির বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন বিষয়গুলো বিবেচনার আশ্বাস দেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল রিভিউ কমিটির টিওআর আরো যুগোপযোগী করার আশ্বাস দেন। মাদক নিরাময়ে গঠিত কমিটিতে আইজিপিকে অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে সুরক্ষা সেবা বিভাগের সঙ্গে কথা বলবেন বলে আশ্বাস দেন। অপারেশনাল গাড়ি সরবাহের জন্য উদ্যোগ নেবেন বলেও তিনি আশ্বাস দেন। পুলিশের একটি মেডিক্যাল কোর অতি দ্রুত সময়ে গঠনের ব্যবস্থা নেবেন বলেও মন্ত্রী আশ্বাস দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা