kalerkantho

সোমবার । ২০ জানুয়ারি ২০২০। ৬ মাঘ ১৪২৬। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

সু চিকে জনসমক্ষে দায় স্বীকার করার আহ্বান সাত নোবেল বিজয়ীর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সু চিকে জনসমক্ষে দায় স্বীকার করার আহ্বান সাত নোবেল বিজয়ীর

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চালানো গণহত্যাসহ সব অপরাধ জনসমক্ষে স্বীকার করার আহ্বান জানিয়েছেন শান্তিতে  নোবেল বিজয়ী সাতজন। তাঁরা বলেছেন, অপরাধকর্মের জন্য মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর ও তাঁর সেনা অধিনায়কদের অবশ্যই ফৌজদারি বিধিতে জবাবদিহি করতে হবে। এক যৌথ বিবৃতিতে তাঁরা বলেন ‘শান্তিতে নোবেল বিজয়ী হিসেবে আমরা নোবেল শান্তি পুরস্কার গ্রহণকারী অং সান সু চিকে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চালানো গণহত্যাসহ সব অপরাধ জনসমক্ষে স্বীকার করার আহ্বান জানাই।’

মিয়ানমারে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর পরিচালিত গণহত্যার বিষয়ে গতকাল মঙ্গলবার নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) শুনানি শুরু হয়েছে। মিয়ানমারের গণহত্যার আচরণ বন্ধে জরুরি পদক্ষেপের নির্দেশ চেয়ে জাতিসংঘের এ আদালতে গত নভেম্বরে  মামলা করে গাম্বিয়া। সু চিকে একসময় যারা গৃহবন্দি করে রেখেছিল সেই সামরিক শক্তির পক্ষে আজ বুধবার জাতিসংঘের আদালতে যুক্তি তুলে ধরবেন তিনি।

নোবেল বিজয়ীদের বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন যে অপরাধের নিন্দা না করে বরং অং সান সু চি ক্রমাগতভাবে অস্বীকার করে যাচ্ছেন যে এসব অপরাধ এমনকি কখনো ঘটেনি।’

বিবৃতিতে সই করা নোবেল বিজয়ীরা হলেন ইরানের শিরিন এবাদি (২০০৩), লাইবেরিয়ার লেমাহ গবোই (২০১১), ইয়েমেনের তাওয়াক্কল কারমান (২০১১), উত্তর আয়ারল্যান্ডের মেরেইড ম্যাগুয়ার (১৯৭৬), গুয়াতেমালার রিগোবার্টা মেনচা তুম (১৯৯২), যুক্তরাষ্ট্রের জোডি উইলিয়ামস (১৯৯৭) এবং ভারতের কৈলাশ সত্যার্থী (২০১৪)। নোবেল বিজয়ীরা বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের পরিচালিত অভিযানে গণহত্যা চালানোর অভিযোগে গাম্বিয়ার মামলা করা এবং অপরাধের বিচারের বিষয়ে এগিয়ে আসায় তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

মিয়ানমারের সরকার রাখাইন রাজ্যের মুসলিম সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের স্বীকৃতি না দেওয়ায় তারা যুগ যুগ ধরে বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছে। সূত্র : ইউএনবি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা