kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী ক্ষমতাসীন ‘ব্যবসায়ী জোট’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্য দায়ী ক্ষমতাসীন ‘ব্যবসায়ী জোট’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকারের দুর্নীতি, টাকা পাচার, লুটপাটের মাধ্যমে পাহাড়সমান সম্পদ অর্জনের কারণে নিত্যপণ্যের মূল্য আকাশচুম্বী হয়েছে। এর পেছনে প্রধান কারণ দলীয় ব্যবসায়ীদের তৈরি জোট ভাঙতে না পারা। এই জোট ভাঙতে না পারলে, টিসিবিকে শক্তিশালী করতে না পারলে, দলীয় লোকজনের পরিবহনের চাঁদাবাজি এবং মধ্যস্বত্ব ব্যবস্থা বন্ধ করতে না পারলে দ্রব্যমূল্য কমানো সম্ভব হবে না।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল এসব কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, দ্রব্যমূল্যের ভয়াবহতার ন্যূনতম আঁচ তাদের (ক্ষমতাসীন) ওপর লাগে না। আপনার-আমারসহ দেশের খেটে খাওয়া মানুষের শ্রমে, ঘামে অর্জিত ট্যাক্সের টাকা শতকরা ৩৬ ভাগই বাইরে চলে যাচ্ছে। গত এক বছরে পেঁয়াজের ঝাঁজ বেড়েছে ৪৩৭ ভাগ।

মহাসচিব বলেন, আমাদের সময়ে ২০০৬ সালে মোটা চাল ছিল গড় ১৭ টাকা ৫০ পয়সা, এখন ২০১৯ সালে তা ৩৪-৪০ টাকা, সরু চাল ছিল ২৪ টাকা ৫০ পয়সা, এখন হচ্ছে এটা ৪১ থেকে ৬০ টাকা। পেঁয়াজ ৮-২০ টাকা, এখন হয়েছে এটা ২২০-২৪০ টাকা। সোয়াবিন তেল ছিল ৫৫ টাকা, এখন হয়েছে ৯৪-১১০ টাকা। আটা ছিল ১৭ টাকা, এখন ২৮-৩২ টাকা। হাঁসের ডিম আমাদের সময় ছিল ১২ টাকা হালি এখন ৭০ টাকা, আলু ছিল ৬ টাকা, এখন ৩০ টাকা, চিনি ছিল ৩৬ টাকা, এখন ৬০ টাকা। বিগত ১৩ বছরে জিনিসপত্রের মূল্য গড় হিসেবে বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি, অনেক জিনিসের মূল্য বেড়েছে তিন গুণ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা