kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

চালের দাম নিয়ন্ত্রণে তৎপর সরকার

স্বরাষ্ট্র ও বাণিজ্যে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাম্প্রতিক সময়ে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, গুজবের পরিপ্রেক্ষিতে লবণকাণ্ডের পর কেউ যেন চালের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করতে না পারে সে বিষয়ে সতর্ক রয়েছে সরকার। চালের দাম নিয়ন্ত্রণে কিছুদিন আগে স্বরাষ্ট্র ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা চেয়ে চিঠি পাঠায় খাদ্য মন্ত্রণালয়। ওই চিঠিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে বাজার মনিটরিং এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে সংশ্লিষ্ট সংস্থার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়।

জানা গেছে, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে চালকল মালিকদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। মিল মালিকরা বলছেন, নতুন ধান কাটা শুরু হয়ে গেছে। তাই নতুন করে চালের মূল্যবৃদ্ধির কোনো কারণ নেই।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সংগ্রহ অধিশাখা থেকে গত ১৯ নভেম্বর পাঠানো ওই দুটি চিঠিতে বলা হয়েছে, দেশে পর্যাপ্ত চাল মজুদ আছে। বিশেষ করে মোটা চাল প্রয়োজনের চেয়ে বেশি আছে। কিন্তু চিকন ধানের সরবরাহ কম থাকা সরু চালের দাম সামান্য বেড়েছে। তবে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মিল মালিকদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। মিল মালিকরা মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে, সরু চালের দাম আর বাড়বে না।

চিঠিতে আরো উল্লেখ করা হয়, সরকারি খাদ্য গুদামে অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি চালের মজুদ আছে। তাই চালের দাম বাড়ার যৌক্তিক কোনো কারণ নেই। এ অবস্থায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, চালের মূল্যবৃদ্ধির প্রবণতা দেখা দেওয়ায় চালের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য মনিটর জোরদার করা প্রয়োজন। অন্যদিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব বরাবর লেখা চিঠিতে বলা হয়, ধানের বাম্পার ফলন এবং বাজারে পর্যাপ্ত চাল সরবরাহ থাকার পরও চালের মূল্যবৃদ্ধির প্রবণতা দেখা দিয়েছে। তাই চালের বাজারের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে নির্দেশনা এবং নজরদারির ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ঢাকার বাজার মনিটরিংয়ে তিনটি কমিটি কাজ করছে। এর বাইরে গত রবিবার খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের নেতৃত্বে মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র অফিসারদের একটি বিশেষ বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে দেশব্যাপী সব জেলা প্রশাসকদের বাজার পর্যবেক্ষণে সম্পৃক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে জেলা-উপজেলায় থাকা খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদেরকেও বাজার তদারকিতে নিয়োজিত করা হয়েছে।

খাদ্যমন্ত্রী বৈঠক শেষে কালের কণ্ঠকে বলেন, চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে ডিসিদেরও সম্পৃক্ত করা হচ্ছে। পাশাপাশি খাদ্য অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ের জেলা-উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদেরও বাজার মনিটরিংয়ের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আসছে আমন মৌসুমে কৃষকদের কাছ থেকে যেন ন্যায্যমূল্যে ধান কেনা হয় সে বিষয়েও ডিসিদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধান কেনার সময় গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে রাখার জন্য বলা হয়েছে। যাতে কোথাও কোনো অনিয়ম না হয়।

সম্প্রতি পেঁয়াজের দামকে কেন্দ্র করে নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে পড়ে। এরই মধ্যে চিকন চালের দাম কেজিপ্রতি তিন থেকে পাঁচ টাকা বৃদ্ধির খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে চালের মূল্য নিয়ন্ত্রণে বিশেষ মনিটরিং টিম এবং কন্ট্রোল রুম খুলেছে সরকার। 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা