kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

একই স্থানে দুই মাসে তিনবার ট্রেন দুর্ঘটনা

‘লাইনচ্যুত হতেই পারে এবং এটা অস্বাভাবিক নয়’

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভৈরব রেলওয়ে স্টেশনের আউটার সিগন্যাল এলাকায় ভৈরব-ময়মনসিংহ রেলপথে একই স্থানে ৫১ দিনে তিনবার ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার দুপুরে একটি মেইল ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। কিন্তু একই স্থানে কেন বারবার একই ঘটনা ঘটছে এর কোনো সদুত্তর নেই রেলওয়ে কর্মকর্তাদের কাছে। উল্টো তাঁদের নির্বিকার জবাব, লাইনচ্যুত হতেই পারে এবং এটা অস্বাভাবিক নয়।

রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, একই স্থানে বারবার ট্রেন লাইনচ্যুত—প্রতিবারই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। দুর্ঘটনা রোধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার কোনো উদ্যোগও দেখা যায় না। এ নিয়ে গণমাধ্যমকে কিছু বলতেও নারাজ রেলওয়ের কর্মকর্তারা। স্থানীয় লোকজনের মতে, এই গুরুত্বহীনতার কারণে আরো বড় ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে ভৈরবে। স্থানীয় লোকজন মনে করে, এই রুটে মান্ধাতার আমলের রেললাইন প্রায় অকেজো হয়ে পড়েছে। তা ছাড়া রেললাইনের ওপর পর্যাপ্ত পাথর নেই। অনেক জায়গায় স্লিপার, নাট, বল্টু ও লোহাগুলো জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে জামালপুর থেকে চট্টগ্রামগামী নাসিরাবাদ মেইল ট্রেনটি ভৈরব রেলওয়ে স্টেশনে ঢোকার সময় আউটার সিগন্যালের কাছে আসার পর এর ইঞ্জিনের পেছনের বগিটি লাইনচ্যুত হয়। এতে এই রুটে চলাচল বন্ধ হয়ে পড়লে বিজয় এক্সপ্রেস, এগারসিন্ধু, ময়মনসিংহ লোকাল ট্রেনসহ চারটি ট্রেন বিভিন্ন স্থানে আটকা পড়ে।

এর আগে গত ১২ অক্টেবার রাত ৮টার দিকে ময়মনসিংহ থেকে ২৪২ নম্বর ডাউন লোকাল ট্রেন আউটার সিগন্যালের কাছে এসে লাইনচ্যুত হয়। এর ১১ দিন আগে ১ অক্টোবর ময়মনসিংহ থেকে ছেড়ে আসা একই ট্রেনের তিনটি বগি একই স্থানে লাইনচ্যুত হয়। প্রতিবারই ভৈরব-ময়মনসিংহ পাঁচ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকে।

গত বৃহস্পতিবার ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বরাবরের মতোই তদন্ত কমিটি করেছে।

এই লাইনচ্যুতির বিষয়ে সম্প্রতি ভৈরবে আসা রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক নাছির উদ্দিন আহমদ কালের কণ্ঠকে বলেছিলেন, ‘ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়াটা স্বাভাবিক, এটা ইঞ্জিনের কারণেই হোক আর লাইনের কারণেই হোক। তবে না হওয়ার জন্য আমরা চেষ্টা করতেছি।’ গত বৃহস্পতিবার দুর্ঘটনার পর মহাব্যবস্থাপকের সঙ্গে সুর মিলিয়ে রেলওয়ের ভৈরব-নরসিংদী বিভাগের যান্ত্রিক প্রকৌশলী সাইফুল ইসলামও বললেন, ট্রেন লাইনচ্যুত হতেই পারে, এটা স্বাভাবিক। চেষ্টা করা হচ্ছে দুর্ঘটনা কমিয়ে আনার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা