kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

দায়িত্বে অবহেলা ও লাইনের ত্রুটিতেই উল্লাপাড়ার দুর্ঘটনা

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দায়িত্বে অবহেলা ও লাইনের ত্রুটিতেই উল্লাপাড়ার দুর্ঘটনা

সিরাজগঞ্জে দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত রংপুর এক্সপ্রেসের ইঞ্জিন ও বগি মেরামতের জন্য গতকাল পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনে নেওয়া হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

কর্তব্যরতদের অবহেলা ও লুপ লাইনের ত্রুটির কারণে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি। গত বৃহস্পতিবার রাতে কমিটির আহ্বায়ক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফিরোজ মাহমুদ পাঁচটি সুপারিশসংবলিত ২৯ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনটি জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মাদের কাছে জমা দেন।

ফারুক আহাম্মাদ জানান, ঘটনাস্থলে রেললাইনের ‘স্টক রেল’ ও ‘টাং রেল’ দুটি লক থাকার কথা ছিল। কিন্তু লক ছিল না। লাইন দুটির মাঝখানে ফাঁকা ছিল। এ কারণে ট্রেনের ইঞ্জিন সেখানে এসে লাইনচ্যুত হয়। তিনি বলেন, প্রতিবেদনের কপি মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর পর এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

তদন্ত কমিটির এক সদস্য বলেন, দুর্ঘটনার দিন ১ নম্বর লাইন দিয়ে ট্রেন যাওয়ার বিষয়টি রেজিস্টারে লেখা থাকলেও ঘষামাজা করে সেখানে ২ নম্বর লাইনের কথা কেন উল্লেখ করা হয়েছে, সে বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ঘটনা তদন্তে রেল মন্ত্রণালয়, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে রাজশাহী, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে পাকশী ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চারটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। অন্য কমিটিগুলো সময় বাড়িয়ে নিলেও জেলা প্রশাসনের কমিটি নির্ধারিত পাঁচ কর্মদিবসের মধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে।

গত ১৪ই নভেম্বর দুপুরে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটি উল্লাপাড়া রেলওয়ে স্টেশন এলাকা অতিক্রম করার সময় ইঞ্জিনসহ সাতটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এ সময় ট্রেনের ইঞ্জিনসহ তিনটি বগিতে আগুন ধরে যায়। এ ঘটনায় আহত হয় অন্তত আটজন।

এদিকে পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি জানান, দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনের বগি ও ইঞ্জিন গত বৃহস্পতিবার উদ্ধার করা হয়। এরপর গতকাল সেগুলো আনা হয় পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশন স্টেশনে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা