kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

নতুন সড়ক নিরাপত্তা আইন

চালক-পথচারীদের সচেতন করাও চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চালক-পথচারীদের সচেতন করাও চলছে

নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর হয়েছে। তৎপর ট্রাফিক বিভাগও। যত্রতত্র রাস্তা পারাপারকারী পথচারীদের ধরে এনে রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে সচেতনতামূলক কর্মসূচি পালন করছেন তাঁরা। ছবিটি গতকাল বনানী মোড় থেকে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ আগের কয়েক দিনের মতো গতকাল সোমবারও নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে বাসচালক, হেলপার ও পথচারীদের নিয়ে নতুন সড়ক পরিবহন আইন বিষয়ে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালায়।

বিকেল ৩টার দিকে রাজধানীর বাংলামোটরের ট্রাফিক সিগন্যালের পাশে ষাটোর্ধ্ব মো. শহীদুল্লাহ নতুন ট্রাফিক আইন নিয়ে কথা উঠতেই বলে ওঠেন, ‘জরিমানা বাড়িয়ে আইনের পরিবর্তন আনা হয়েছে। এতে আইন প্রয়োগকারীরা কিছুটা বাড়াবাড়িও করেছে। তবে মানুষের চরিত্র পরিবর্তন হয়নি। চরিত্র পরিবর্তন হলে আইনের এত বাড়াবাড়ির প্রয়োজন পড়ত না।’ তিনি এরপর সামনের দিকে আঙুল দেখিয়ে বলেন, ‘ওই দেখেন, কেউ ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার করছে না।’

তাঁর দেখানো দিকে তাকিয়ে দেখা গেল ট্রাফিক নিয়ম আমান্য করে যুবক, কিশোর, তরুণ, তরুণীসহ নানা বয়সী মানুষ ফুট ওভারব্রিজের নিচ দিয়ে হেঁটে রাস্তা পার হচ্ছে। সামনে এগিয়ে কথা হয় তাদের কয়েকজনের সঙ্গে। ফুট ওভারব্রিজ থাকতেও কেন আইন অমান্য করে ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছেন—এই প্রশ্নে মো. রেজাউল নামের এক যুবক বললেন, ‘আমার কিছুটা তাড়া আছে। এ কারণে ফুট ওভারব্রিজে না উঠে রাস্তা পার হচ্ছি।’ অন্য কয়েকজন স্বীকার করলেন, আইন মেনে ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার করা উচিত। তবে অভ্যাসগত কারণে তাঁরা সেটা করছেন না।

এ সময় সড়কে এলোমেলো গাড়ি চলাচলের পাশাপাশি নানা বিশৃঙ্খলা চোখে পড়ে। জানতে চাইলে ট্রাফিক সার্জেন্ট মো. আক্তার হোসেন বলেন, এখনো তাঁরা নতুন আইন মেনে চলতে সবাইকে সচেতন করছেন। মামলা করতে লিখিত নির্দেশনা ও সরঞ্জাম হাতে পাননি।

এত সচেতনতার পরও দুপুরে রাজধানীর ব্যস্ততম মগবাজার চার রাস্তার মোড়ে পুলিশের সামনেই অনেক পরিবহন বিশৃঙ্খলভাবে চলছিল। তাই দেখে সেখানে দায়িত্বে থাকা ঢাকা মহনগর পুলিশের রমনা জোনের ট্রাফিক পুলিশের সহকারী কমিশনার মো. রিফাতুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ওই দেখেন, এত করে বোঝানোর পরও কেউ আইন মানতে চায় না।’

‘ওই, গেইট মাইরা যা কইলাম, খোলা থাকলে ছয় মাসের জেইলে পাঠাইবো’—আগের দিন রবিবার দুপুুরে নীলক্ষেত মোড়ে পাশ দিয়ে যাওয়া একটি বাসের হেলপারকে এ কথা বলে সতর্ক করেন মিরপুরগামী সেফটি পরিবহনের সুপারভাইজার নিজাম উদ্দিন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা