kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নামে আবারও মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে রোগীদের জন্য পথ্য সরবরাহের ঠিকাদার নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগে হাসপাতাল পরিচালক ও দরপত্র কমিটির সদস্যদের বিরুদ্ধে আবারও মামলা করা হয়েছে। গতকাল রবিবার মহানগর যুগ্ম জজ আদালতের বিচারক জয়ন্তী রানী দাস বাদী ঠিকাদার এমদাদুল হকের আবেদন আমলে নিয়ে আগামী ১৯ জানুয়ারি শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

ঠিকাদার এমদাদুল হকের অভিযোগ, আটটি গ্রুপের মধ্যে চারটি গ্রুপের দরপত্র খোলা হয় প্রকাশ্যে। অন্য চারটি গ্রুপের দরপত্র খোলা হয় গোপনে। যারা কাজ পেয়েছে, তাদের চিঠি দিয়ে জানায় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু কে কত দর দিয়েছিল, তা জানানো হয়নি। দরপত্র দলিলে দেখা যায়, রেশন গ্রুপে শাহাবুদ্দিন হলুদের দর দেন প্রতি কেজি ৫৮ টাকা। কিন্তু কাজটি ১৭০ টাকা দর দিলেও তাঁকে দেওয়া হয়নি। ২২৫ টাকা দর দেওয়া আজাদ আলীকে কাজটি দেওয়া হয়েছে। জিরা প্রতি কেজি ১২০ টাকা দর দেন শাহাবুদ্দিন। কিন্তু সরবরাহের কাগজে তাকে (শাহাবুদ্দিন) দর দেওয়া হয়েছে ৩৫০ টাকা প্রতি কেজি।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, আটটি গ্রুপে মোট ৩৮টি আইটেমের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। ঠিকাদাররা এতে অংশ নিয়ে দরপত্র জমা দেন। গত ৫ সেপ্টেম্বর দরপত্র বাক্স খোলা হয়। ২৬ অক্টোবর ঠিকাদারদের কার্যাদেশ দেওয়া হয়। কিন্তু কার্যাদেশ হাতে পাওয়ার পর ধরা পড়ে নানা অনিয়ম। সর্বনিম্ন ঠিকাদারকে কাজ না দিয়ে উচ্চ দরে পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ দেওয়া হয়েছে।

হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, তাঁরা আদালতেই বিষয়টি মোকাবেলা করবেন।

উল্লেখ্য, এর আগে মো. সুমন ও পাবনার আরজেডএস এন্টারপ্রাইজের প্রপাইটার রাশেদুজ্জামান আলাদা দুটি মামলা করেছেন। সেগুলোরও শুনানি আগামী জানুয়ারিতে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা