kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

এবার সরকারিভাবে পেঁয়াজ আনা হচ্ছে কার্গো বিমানে

টিসিবির মাধ্যমে সারা দেশে বিপণন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এবার সরকারিভাবে পেঁয়াজ আনা হচ্ছে কার্গো বিমানে

এবার বিদেশ থেকে কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তুরস্ক, মিসর, ইউক্রেন ও আফগানিস্তান থেকে এই পেঁয়াজ আনা হচ্ছে। চলতি সপ্তাহের মাঝামাঝি তুরস্ক ও মিসরের পেঁয়াজ দেশে পৌঁছাবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যসচিব জাফর উদ্দিন। গতকাল শুক্রবার তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, বাজারের এই পরিস্থিতিতে সরকার মিসর ও তুরস্ক থেকে বিমানযোগে পেঁয়াজ আনার উদ্যোগ নিয়েছে। আগামী সপ্তাহের সোম অথবা মঙ্গলবার এই পেঁয়াজ দেশে এসে পৌঁছাবে। তারপর টিসিবির মাধ্যমে সারা দেশে ব্যাপক ভিত্তিতে পেঁয়াজ বিপণন করা হবে।

মিসর ও তুরস্ক ছাড়াও ইউক্রেন, আফগানিস্তানসহ আরো কয়েকটি দেশ থেকে বিমানযোগে পেঁয়াজ আনতে কিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলেও জানান সচিব।

পেঁয়াজের দাম ও সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে বিদেশ থেকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে আমদানি, অসাধুচক্রের বিরুদ্ধে অভিযান, খোলাবাজারে সুলভমূল্যে বিক্রিসহ নানা উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে বাণিজ্যসচিব বলেন, এর পরও বাজার পরিস্থিতি সন্তোষজনক করা যায়নি। এ ক্ষেত্রে কেবল সরকারের ব্যর্থতা নয়, বরং বিশ্ববাজারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অনেক বিষয় কাজ করেছে। তবে এ মুহূর্তে ওই সব বিশ্লেষণ করে লাভ নেই।

গত সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ার পর আমদানি করতে নতুন দেশ খুঁজতে শুরু করে বাংলাদেশ। এরপর ৬৬ হাজার ১৬২ টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতিপত্র (এলসি) খোলা হলেও বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ এসেছে মাত্র ছয় হাজার টনের মতো। এ পরিস্থিতিতে অন্যদের ওপর নির্ভরতা বাদ দিয়ে সরকারিভাবেই পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে বলে জানান বাণিজ্যসচিব।

এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ বকসীর সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, কার্গো বিমানে পেঁয়াজ আমদানির জন্য আনুষ্ঠানিকতা এরই মধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে দেশের সব বাজারে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ সরবরাহ করা সম্ভব হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা