kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ জানুয়ারি ২০২০। ১০ মাঘ ১৪২৬। ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

করের আওতা বাড়িয়ে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে

ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া আবারও সেরা করদাতা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



করের আওতা বাড়িয়ে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে

ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে গতকাল সেরা করদাতার পুরস্কার নেন ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়ার কর্মকর্তারা। ছবি : কালের কণ্ঠ

করের হার বাড়বে না। করের আওতা বাড়িয়ে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর এক হোটেলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত ‘ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ কথা বলেন।   

অনু্ষ্ঠানে সর্বোচ্চ ও দীর্ঘ সময়ে কর প্রদান করায় জাতীয়ভাবে ব্যক্তিপর্যায়ে ৭৫ জন, কম্পানি পর্যায়ে ৫৭ প্রতিষ্ঠান এবং অন্যান্য ক্যাটাগরিতে ১০ জনকে ট্যাক্স কার্ড ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এ ছাড়া এলাকাভিত্তিক উল্লেখযোগ্য আরো কিছু ব্যক্তিকে একই সম্মাননা দেওয়া হয়। এ ছাড়া ঢাকা বিভাগের ৬৩ জনকে ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা দেওয়া হয়। মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। এভাবে চললে ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ তাইওয়ানকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাবে।

২০১৮-১৯ করবর্ষের জন্য দেশের প্রথম সারির শিল্পপ্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড (ইডাব্লিউএমজিএল) আবারও শীর্ষ করদাতা নির্বাচিত হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষে সম্মাননা গ্রহণ করেন ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের উপমহাব্যবস্থাপক আবদুল মান্নান ও উপমহাব্যবস্থাপক এস এম মেহেদী হাসান। প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া ক্যাটাগরিতে ইডাব্লিওএমজিএল পরপর গত তিন বছরের পর এবারেও সেরা করদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে।  এই প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন ছয়টি গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান হলো কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ইংরেজি পত্রিকা ডেইলি সান, অন লাইন পত্রিকা বাংলা নিউজ টোয়েন্টিফোরডটকম, নিউজ টোয়েন্টিফোর টেলিভিশন এবং রেডিও ক্যাপিটাল। বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান ও তাঁর পরিবার এর আগে কর বাহাদুর পরিবার হিসেবে নির্বাচিত হয়। এবারে প্রজ্ঞাপনে জাতীয় পর্যায়ে ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম থাকলেও পরবর্তী সময়ে আরো একজন আইনজীবীকে এ তালিকায় যুক্ত করে গতকাল ১৪২ জনকে ট্যাক্স কার্ড দেওয়া হয। কম্পানি পর্যায়ে ১৪টি এবং অন্যান্য পর্যায়ে চারটি ক্যাটাগরিতে ট্যাক্স কার্ড দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গতকাল সেগুনবাগিচায় এনবিআরের প্রধান কার্যালয়ের সামনে এবারের ট্যাক্সপ্রাপ্তদের তালিকা থেকে জর্দা ব্যবসায়ী হাজি কাউস মিয়ার নাম বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করে তামাকবিরোধী নারী জোট। এনবিআর চেয়ারম্যান এ প্রসঙ্গে সভাপতির বক্তৃতায় বলেন, ‘হাজি কাউস মিয়া আমাদের রত্ন। তিনি সব সময় আমাদের নিয়মিত কর দিয়ে আসছেন।’

অনুষ্ঠানে এনবিআর চেয়ারম্যানের অনুরোধে হাজি কাউস মিয়া বক্তৃতা দিতে এসে বলেন, ‘জর্দার কৌটার ওপরে আমার ফটো থাকে বলে আপনারা আমাকে জর্দা ব্যবসায়ী বলেন। আমার আরো অনেক ব্যবসা আছে।’ 

অনুষ্ঠানে দেওয়া ট্যাক্স কার্ডের মেয়াদ থাকবে এক বছর। কার্ডপ্রাপ্তরা রাষ্ট্রীয় সুবিধা পাবেন।

ট্যাক্স কার্ডের জন্য নির্বাচিতরা

সিনিয়র সিটিজেন : ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার বদরুল হাসান, আলী হোসাইন আকবর আলী, অনিতা চৌধুরী ও ডা. মোস্তাফিজুর রহমান। গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা : লে. জেনারেল (অব.) আবুল সালেহ মো. নাসিম, এস এম আবদুল ওয়াহাব ও আল মামুন। প্রতিবন্ধী : সুকর্ণ ঘোষ, আকরাম মাহমুদ ও ডা. মামুনুর রশিদ। মহিলা : একই পরিবারের তিনজন—রুবাইয়াত ফারজানা হোসেন, লায়লা হোসেন, হোসনে আরা হোসেন। এ ছাড়া রত্না পাত্র, মাহমুদা আলী শিকদার। তরুণ : গাজী গোলাম মর্তূজা, মো. মেহেদী হাসান, মো. জুলফিকার হোসেন মাসুদ রানা ও আবু রায়হান রুবেল। ব্যবসায়ী : মো. কাউছ মিঞা, সৈয়দ আবুল হোসেন, কামরুল আশরাফ খান, মো. কামাল ও আসলাম সেরনিয়াবাত।

বেতনভোগী : মো. ইউসুফ, খাজা তাজমহল, এম এ হায়দার হোসেন, আব্দুল মুক্তাদির ও ফরিদুর রেজা। চিকিৎসক : অধ্যাপক ডা. এ কে এম ফজলুল হক, অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, ডা. এন এ এম মোমেনুজ্জামান, নার্গিস ফাতেমা ও শামসুল আরেফিন।

সাংবাদিক : মো. আবদুল খালেক, মাহফুজ আনাম, শাইখ সিরাজ, মতিউর রহমান ও মনজুরুল আহসান বুলবুল। আইনজীবী : শেখ ফজলে নূর তাপস, মাহবুবে আলম, আমিন উদ্দিন, রফিক-উল হক ও নিহাদ কবীর। প্রকৌশলী : রেজাউল করিম, শাহ  মো. হান্নান ও এস এম আবু সুফিয়ান। স্থপতি : ফয়েজ উল্লাহ, রফিক আজম ও গোলাম আজম সিজার। অ্যাকাউন্ট্যান্ট : মোক্তার হোসেন, মনজুরুল আলম ও মো. ফারুক। নতুন করদাতা : মতিউর রহমান, জমিলা বেগম, মিরাজুল ইসলাম, হোসনে নুজহাত, নারগিছ আকতার, মো. রেজুয়ান কবীর ও সেনিয়া সারহা পিংকি। খেলোয়াড় : সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল ও মাশরাফি বিন মর্তুজা। অভিনেতা-অভিনেত্রী : আনিসুল ইসলাম হিরু, ফরিদা আকতার ববিতা ও সাকিব খান রানা। শিল্পী : তাহসান রহমান খান, মমতাজ বেগম ও এস ডি রুবেল। অন্যান্য : শওকত আলী, আকতার মতিন ও নজরুল ইসলাম মজুমদার।

প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে

ব্যাংকিং খাত : ইসলামী ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, দি হংকং অ্যান্ড সাংহাই ব্যাংকিং করপোরেশন লিমিটেড, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, ব্রাক ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক। অব্যাংকিং আর্থিক খাত : আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফাইন্যান্স ফান্ড লিমিটেড এবং ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কম্পানি। টেলিযোগাযোগ খাত :  গ্রামীণফোন। প্রকৌশল : বিএসআরএম স্টিলস লিমিটেড, খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড ও বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেড। খাদ্য ও আনুষঙ্গিক : নেসলে বাংলাদেশ লিমিটেড, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ও স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড। জ্বালানি খাত : তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি লিমিটেড, মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড ও গ্যাস ট্রান্সমিশন কম্পানি লিমিটেড । পাটশিল্প : জনতা জুটমিলস লিমিটেড, সুপার জুট মিলস লিমিটেড ও আকিজ জুটমিলস লিমিটেড। স্পিনিং এবং টেক্সটাইল : কোটস বাংলাদেশ লিমিটেড, এপেক্স টেক্সটাইল প্রিন্টিং মিলস লিমিটেড, বাদশা টেক্সটাইল লিমিটেড, এসিএস টেক্সটাইলস লিমিটেড, এনভয় টেক্সটাইল লিমিটেড, ফরুদ্দিন টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড ও নোমান টেরিটাওয়াল মিলস লিমিটেড। ওষুধ ও রসায়ন : ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেড, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, রেনাটা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড ও ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া : ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড, ট্রান্সক্রাফট লিমিটেড, মিডিয়া ওয়ার্ল্ড লিমিটেড ও মিডিয়া স্টার লিমিটেড। আবাসন : র্যাংগস প্রপার্টিজ লিমিটেড, ইক্যুইটি প্রপার্টি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড, বে ডেভেলপমেন্টস লিমিটেড। চামড়াশিল্প : বাটা শু, অ্যাপেক্স ফুটওয়্যার ও এটলাস ফুটওয়্যার লিমিটেড। তৈরি পোশাক শিল্প : ইয়াংওয়ান হাইটেক স্পোর্টসওয়্যার, রিফাত গার্মেন্টস লিমিটেড, জিএমএস কম্পোজিট নিটিং ইন্ডাস্ট্রিজ. হামীম ডেনিম লিমিটেড, দি ইট স্পোর্টস ওয়্যার লিমিটেড, প্যাসিফিক জিন্স লিমিটেড ও ফোর এইচ ফ্যাশানস লিমিটেড। অন্যান্য : ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, আমেরিকান লাইফ ইনস্যুরেন্স কম্পানি, সাধারণ বীমা করপোরেশন ও তমা কনস্ট্রাকশন অ্যান্ড কম্পানি লিমিটেড। ফার্ম ক্যাটাগরি : ওয়ালটন প্লাজা, মেসার্স ছালেহ আহম্মদ, মেসার্স এ এস বি এস ও মেসার্স এস এন করপোরেশন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা