kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ জানুয়ারি ২০২০। ১০ মাঘ ১৪২৬। ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন

সভাপতি ছাড়া অন্যান্য পদে আসছেন তরুণরা

আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে যাঁরা রাজপথে ছিলেন, জেল খেটেছেন, পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তি আছে—তাঁদের হাতেই স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হবে

তৈমুর ফারুক তুষার   

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগের দ্বিতীয় সম্মেলনের মধ্য দিয়ে যে নতুন কমিটি হবে তাতে তরুণ নেতাদের প্রাধান্য থাকছে। শুধু সভাপতি পদে তুলনামূলক একজন জ্যেষ্ঠ নেতাকে রেখে সাধারণ সম্পাদকসহ অন্য পদগুলোতে রাখা হতে পারে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা এমনটি জানিয়েছেন।

ওই নেতারা জানান, ভবিষ্যতে টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে দানব হয়ে উঠতে পারেন এমন সম্ভাবনার ন্যূনতম ক্ষেত্র যাঁরা তৈরি করেছেন তাঁদের নেতৃত্বে না আনতে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে যাঁরা রাজপথে ছিলেন, জেল খেটেছেন, পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তি আছে—তাঁদের হাতেই স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হবে।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রথম সম্মেলনের মধ্য দিয়ে নির্বাচিত সভাপতি ও বর্তমানে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এবারের কমিটিতে তরুণ নেতাদের প্রাধান্য থাকবে। ছাত্রলীগের সাবেক নেতা, বিশেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের অনেককেই এবার কমিটিতে দেখা যাবে। যেসব নেতা দীর্ঘদিন রাজপথে ছিলেন, জেল খেটেছেন, যাঁরা পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তি ধরে রেখেছেন এবং দলের জন্য নিবেদিত তাঁদের কমিটিতে রাখা হবে।’

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ১৬ নভেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন শেষে ওই দিনই নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির পাশাপাশি ঢাকা মহানগর উত্তর ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটিও ঘোষণা করা হবে। নবনির্বাচিত কেন্দ্রীয় কমিটি ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটি অনুমোদন দেবে।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি পদে আলোচনায় আছেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক নির্মল রঞ্জন গুহ, সদস্যসচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, বর্তমান কমিটির সহসভাপতি মতিউর রহমান মতি, মঈন উদ্দিন ও আফজালুর রহমান বাবু। তাঁদের মধ্যেই কাউকে সভাপতি করার সম্ভাবনা বেশি।

সাধারণ সম্পাদক পদে তরুণ কাউকে রাখার সম্ভাবনাই বেশি। বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম বেপারী, এ কে এম আজিম, শেখ সোহেল রানা টিপু, সাজ্জাদ সাকিব বাদশা, খায়রুল হাসান জুয়েল আলোচনায় আছেন। তাঁদের মধ্যে আলীম ও জুয়েল ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা। শেখ সোহেল রানা টিপু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, আজিম ও বাদশা সাবেক সাধারণ সম্পাদক। তাঁদের মধ্যে কারোর সাধারণ সম্পাদক হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

দলীয় ও সংগঠন সূত্রে জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মেহেদী হাসান ও সাধারণ সম্পাদক ওমর শরীফও নতুন কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে পারেন।

সূত্র মতে, গত ১১ ও ১২ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটিও অনেকটা গুছিয়ে আনা হয়েছে। ১৬ নভেম্বরই ওই দুই শাখারও কমিটি ঘোষণা হবে। ঢাকা মহানগর উত্তরে গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে যাচ্ছেন ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইসহাক মিয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল ও তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আমজাদ হোসেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে যাচ্ছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনিসুর রহমান ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনিস উজ জামান রানা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা