kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

শীর্ষ ২০ খেলাপি থেকে ঋণ আদায় হচ্ছে না

স্বল্প মাত্রার খেলাপি থেকে আদায় মোটামুটি সন্তোষজনক
দুই ব্যাংকের সঙ্গে গভর্নরের বৈঠক

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শীর্ষ বিশ খেলাপির কাছ থেকে ঋণ আদায় করতে পারছে না বিশেষায়িত বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (বিকেবি) ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব)। চলতি বছরের জুন শেষে বিশেষায়িত খাতের এই দুই ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৬৬৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে শীর্ষ বিশ খেলাপির কাছেই আটকে আছে এক হাজার ৩৯০ কোটি টাকা। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে তাদের কাছ থেকে ২৬৫ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ব্যাংক দুটি আদায় করতে পেরেছে মাত্র ২৭ কোটি টাকা। তবে একই সময়ে ছোট খেলাপিদের কাছ থেকে আদায় পরিস্থিতি মোটামুটি সন্তোষজনক।

গতকাল বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে ব্যাংকগুলোর সমঝোতা স্মারকের আওতায় অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এই তথ্য উঠে আসে। গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপত্বিতে ওই বৈঠকে বিকেবি ও রাকাবের চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা (এমডি) উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ তিন হাজার ৫৬৬ কোটি টাকা। ব্যাংকটি চলতি বছরের জুন শেষে শীর্ষ বিশ খেলাপির কাছ থেকে ২০০ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে। কিন্তু নির্ধারিত সময় শেষে মাত্র ১৩ কোটি টাকা ফেরত দিয়েছে শীর্ষ খেলাপিরা, যা নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার মাত্র ৬.৭৩ শতাংশ।

শীর্ষ বিশ খেলাপির কাছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের পাওনা মোট এক হাজার ১৪ কোটি টাকা। এর বাইরে ছোট গ্রাহকদের খেলাপি ঋণ দুই হাজার ৫৫২ কোটি টাকা। এই জুন মাসের মধ্যে তাদের কাছ থেকে আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ছিল ৭৮৪ কোটি টাকা। আর আদায় হয়েছে ৭৪৫ কোটি টাকা, যা নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার ৯৫ শতাংশ।

একইভাবে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ এক হাজার ১০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে শীর্ষ ২০ খেলাপির কাছেই আটকে আছে ৩৭৬ কোটি টাকা। জুন পর্যন্ত তাদের কাছ থেকে আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ৬৫ কোটি টাকা থাকলেও নির্ধারিত সময় শেষে আদায় হয়েছে মাত্র ১৪ কোটি টাকা। এটা নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার মাত্র ২২ শতাংশ। অন্যদিকে জুন পর্যন্ত ছোট গ্রাহকদের কাছ থেকে মোট খেলাপি ছিল ৭২৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে ২৬২ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ৩৮৪ কোটি টাকা আদায় করেছে রাকাব। অর্থাৎ ছোট খেলাপিদের কাছ থেকে ছয় মাসে লক্ষ্যমাত্রার ১৪৬ শতাংশ আদায় হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের মোট অবলোপনকৃত ঋণের পরিমাণ ২১২ কোটি টাকা। এর মধ্যে জুন শেষে ৭৪ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। আর আলোচ্য সময়ে লক্ষ্যমাত্রার মাত্র ১.৭০ শতাংশ আদায় সম্ভব হয়েছে। অর্থাৎ অবলোপনকৃত ঋণ থেকে জুন শেষে চার কোটি ৭৫ লাখ টাকা আদায় হয়েছে কৃষি ব্যাংকের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা