kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

আখতারুজ্জামানের স্মরণসভায় কাদের

অপকর্মকারীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপকর্মকারীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই

গুটিকয়েক খারাপ লোকের জন্য গোটা আওয়ামী লীগ বদনামের ভাগীদার হবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি। তিনি বলেছেন, ‘যারা অন্তঃকলহ করবে, অপকর্ম করবে, দুর্নীতি, টেন্ডারবাজি, মাদক ব্যবসা করবে, সেসব অপকর্মকারীর স্থান আওয়ামী লীগে নেই। আমাদের দূষিত রক্তের দরকার নেই। দূষিত রক্ত বের করে দিতে হবে। বিশুদ্ধ রক্ত সঞ্চালন করতে হবে। পুরো আওয়ামী লীগে ভালো লোকদের ত্যাগ বৃথা যেতে পারে না।’

গতকাল বুধবার দুপুরে চট্টগ্রাম নগরের বাকলিয়ার একটি কনভেনশন হলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য ও এমপি আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

আগের দিন গত মঙ্গলবার বিকেলে লালদীঘি মাঠে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগ আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনাসভা দুই পক্ষের সংঘর্ষে পণ্ড হয়ে যায়। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়।

প্রয়াত নেতা আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর স্মৃতিচারণা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, শুধু ব্যবসা করলে তিনি বাংলাদেশের এক নম্বর ধনী হতেন। কিন্তু রাজনীতিকে তিনি মানি মেকিং মেশিন করেননি। বাবু ভাই রাজনীতিকে কেনাবেচার পণ্য মনে করেননি। কিন্তু আজ অনেকে রাজনীতিকে কেনাবেচার পণ্য মনে করে।

সভায় আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্মুদ এমপি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর দল যখন মহাবিপর্যয়ে, তখন সব চক্রান্ত উপেক্ষা করে যাঁরা চট্টগ্রামের মাটিতে দলের রাজনীতি করেছেন, স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর শেখ হাসিনার পাশে দাঁড়িয়েছেন; তাঁদেরই একজন আখতারুজ্জামান বাবু। ১৯৭৫-র পর দল চালানোর ক্ষেত্রে বাবু ভাইয়ের হাত সব সময় প্রসারিত ছিল।

আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর ছেলে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপি বলেন, ‘আমার বাবা বেঁচে আছেন আপনাদের মধ্যে। একজন রাজনীতিবিদের এটাই সবচেয়ে বড় পাওয়া। পঁচাত্তর-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এক কঠিন সময় পার করছিল। ওই সময় আওয়ামী লীগের দুর্দিনে পাশে দাঁড়ানোর লোকের অভাব ছিল। সেই সময় আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান হিসেবে আমার পিতা পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা