kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের উদ্যোগ

১৯৫৭ সালের ৩ এপ্রিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদে শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী হিসেবে চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (এফডিসি) গঠনের প্রস্তাব উত্থাপন করেছিলেন। প্রস্তাব পাস হয়। গঠিত হয় এফডিসি। কিন্তু এত বছরেও জাতির পিতাকে নিয়ে তেমন কোনো চলচ্চিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র কিংবা প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করা হয়নি। বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছেন। সেই কৃতজ্ঞতাবোধ থেকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মুজিববর্ষ উদ্‌যাপন উপলক্ষে তাঁর জীবন ও আদর্শের ওপর স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

গতকাল রবিবার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপন উপলক্ষে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণে সেরা স্ক্রিপ্ট বেছে নিতে বাছাই উপকমিটির এক সভায় সংসদ সদস্য ও অভিনয়শিল্পী আকবর হোসেন পাঠান (ফারুক) সভাপতি হিসেবে দেওয়া বক্তব্যে এ কথা বলেন।

সভায় স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের ৩৬টি স্ক্রিপ্ট এবং প্রামাণ্যচিত্রের ২৬টি স্ক্রিপ্ট চূড়ান্ত করা হয়। এতে চলচ্চিত্র পরিচালকদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন ড. মতিন রহমান এবং কাজী কামাল। এ ছাড়া চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী রোজিনা, রোকেয়া প্রাচী ও রিয়াজ আহমেদ, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইসতাক হোসেনসহ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মুজিববর্ষ উদ্‌যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

গঙ্গা যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবের পর্দা নামল

নাটক, সংগীত, আবৃত্তি মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে গতকাল পর্দা নামল দশ দিনব্যাপী গঙ্গা যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবের। সমাপনী দিনের আয়োজনে বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে মিলনায়তনের বহিরাঙ্গনের উন্মুক্ত মঞ্চে আবৃত্তি, সংগীত পরিবেশিত হয়। পরে সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় নাট্যশালার তিনটি মিলনায়তন এবং মহিলা সমিতির মঞ্চে নাটকের প্রদর্শনী হয়। পাশাপাশি শিল্পকলা একাডেমির সংগীত, আবৃত্তি ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে সংগীতানুষ্ঠান এবং আবৃত্তি প্রযোজনার মঞ্চায়ন হয়।

উৎসবের শেষ দিনে জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে আরণ্যক নাট্যদল মঞ্চস্থ করে ‘ময়ূর সিংহাসন’, পরীক্ষণ থিয়েটার মিলনায়তনে সময় নাট্যদল মঞ্চস্থ করে ‘ভাগের মানুষ’ এবং স্টুডিও থিয়েটার মিলনায়তনে থিয়েটার ৫২ মঞ্চস্থ করে ‘নননপুরের মেলায় একজন কমলাসুন্দরী ও একটি বাঘ আসে’ নাটকটি। অন্যদিকে নাটক সরণির (বেইলি রোড) মহিলা সমিতির নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তনে থিয়েট্রন মঞ্চস্থ করে ‘সিচুয়ানের সুকন্যা’। সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে কণ্ঠশীলন মঞ্চস্থ করে আবৃত্তি প্রযোজনা ‘চাঁদ বণিকের পালা’ এবং আনন্দন পরিবেশন করে সংগীতানুষ্ঠান।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা