kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

গঙ্গা-যমুনা উৎসবের সমাপনী আজ

কাল শুরু বাংলা নাট্যোৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গঙ্গা-যমুনা উৎসবের সমাপনী আজ

গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসব আজ রবিবার শেষ হচ্ছে। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে সমাপনী অনুষ্ঠান শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টায়।

আগামীকাল সোমবার শুরু হচ্ছে বাংলা নাট্যোৎসব। মহাকাল নাট্যসম্প্রদায়ের তিন যুগের পথচলাকে স্মরণীয় করে রাখতে এ উৎসব আয়োজন করেছে নাটকের এই দলটি। চলবে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত।

গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবের সমাপনী আজ

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার অভিন্ন সংস্কৃতির অভিজ্ঞতা বিনিময় এবং সংস্কৃতির মানুষের মৈত্রীর বন্ধন আরো সুদৃঢ় করার লক্ষ্য নিয়ে সাত বছর ধরে ‘গঙ্গা-যমুনা উৎসব’-এর আয়োজন করে যাচ্ছে গঙ্গা-যমুনা নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব পর্ষদ। এবার ১০ দিনের অষ্টম গঙ্গা-যমুনা সাংস্কৃতিক উৎসবের সমাপ্তি ঘটবে আজ। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার ইনস্টিটিউটের সভাপতি রামেন্দু মজুমদার। অতিথি হিসেবে থাকবেন নাট্যজন কেরামত মওলা, নাট্যজন দেবপ্রসাদ দেবনাথ, নাট্যজন ঝুনা চৌধুরী, নৃত্যশিল্পী মিনু হক, নাট্যজন আহাম্মেদ গিয়াস। সভাপতিত্ব করবেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গোলাম কুদ্দুছ।

উৎসবের সমাপনী দিনে জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তন (আরণ্যক নাট্যদলের প্রযোজনা : ময়ূর সিংহাসন), এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হল (সময়ের প্রযোজনা : ভাগের মানুষ), স্টুডিও থিয়েটার হলে (থিয়েটার ৫২-এর প্রযোজনা : নননপুরের মেলায় একজন কমলাসুন্দরী ও একটি বাঘ আসে) নাটক শুরু হবে সন্ধ্যা ৭টায়। সংগীত, আবৃত্তি ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠান শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টায় এবং মুক্তমঞ্চের অনুষ্ঠান শুরু হবে বিকেল ৪টায়।

গতকাল শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে নাট্যচক্রের ‘ভদ্দরনোক’, পরীক্ষণ থিয়েটার হলে ভারতের বেলঘরিয়া রূপতাপস প্রযোজিত ‘এলা এখন’ ও স্টুডিও থিয়েটার হলে মঞ্চায়ন হয় নাট্যম রেপার্টরির নাটক ‘ডিয়ার লায়ার’। একই সময়ে মহিলা সমিতির ড. নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তনে মঞ্চায়ন হয় শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্রের নাটক ‘তৃতীয় একজন’। এ ছাড়া একাডেমির উন্মুক্ত মঞ্চ, সংগীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে ছিল নাচ, গান, আবৃত্তি, পথনাটকসহ নানা সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।

কাল শুরু হচ্ছে মহাকালের ‘বাংলা নাট্যোৎসব’

আগামীকাল সোমবার শুরু হচ্ছে ‘বাংলা নাট্যোৎসব ২০১৯’। এতে বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন নাট্যদলের ৩১টি নাটক মঞ্চায়ন হবে। একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তন ও পরীক্ষণ থিয়েটার হল, মহিলা সমিতির ড. নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তন ও দনিয়ার স্টুডিও থিয়েটার হলে মঞ্চায়ন হবে নাটকগুলো। সন্ধ্যা ৬টায় শিল্পকলা একাডেমিতে যৌথভাবে এই নাট্যোৎসবের উদ্বোধন করবেন ত্রিপুরা রাজ্য বিধানসভার চিফ হুইপ কল্যাণী রায়, বাংলাদেশের রামেন্দু মজুমদার ও আতাউর রহমান। উদ্বোধন পর্ব শেষে জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে আয়োজক নাট্যদলের নাটক ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’, পরীক্ষণ থিয়েটার হলে নাট্যচক্রের ‘একা এক নারী’ এবং মহিলা সমিতি মিলনায়তনে মঞ্চায়ন হবে ব্যতিক্রম নাট্যগোষ্ঠীর নাটক ‘তক্ষক’।

উৎসবে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশের মহাকাল নাট্যসম্প্রদায়, দেশনাটক, প্রাচ্যনাট, থিয়েটার আর্ট ইউনিট, নাট্যচক্র, বুনন থিয়েটার, শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্র, আরণ্যক নাট্যদল, মুন্সীগঞ্জের থিয়েটার সার্কেল, ঢাকা থিয়েটার, ব্যতিক্রম নাট্যগোষ্ঠী, নাট্যতীর্থ, নাট্যম রেপার্টরি, লোক নাট্যদল (বনানী), সময়, নাগরিক নাট্যাঙ্গন অনসাম্বল, বটতলা, অনুরাগ থিয়েটার, চন্দ্রকলা থিয়েটার, নবনাট, পদাতিক নাট্য সংসদ (টিএসসি), বাংলাদেশের পুতুলনাট্য গবেষণা কেন্দ্র, কথক, নাট্যযোদ্ধা ও বাঙলা নাট্যদল, ভারতের আসাম রাজ্যের ভাবিকাল থিয়েটার, পশ্চিমবঙ্গের ‘এবং আমরা থিয়েটার’ ও রঘুনাথগঞ্জ থিয়েটার গ্রুপ, ত্রিপুরার শুভম নাট্যচক্র ও লারনার্স থিয়েটার।

গতকাল শিল্পকলা একাডেমির সেমিনার কক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান এ আয়োজকরা। উৎসব সহযোগিতায় রয়েছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও সবুজছায়া।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা