kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বরিশালে মেনন

গত নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি

বরিশাল অফিস   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গত নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমিও নির্বাচিত হয়েছি। তার পরও আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, ওই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি। এমনকি পরবর্তী সময়ে উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও ভোট দিতে পারেনি দেশের মানুষ। গতকাল শনিবার দুপুরে বরিশাল নগরের অশ্বিনী কুমার হলে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দলটির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আমি নিজেও আন্দোলন-সংগ্রাম করেছি। অথচ আজ সেই ভোটে সাধারণ জনগণ নিজেদের মতামত প্রকাশ করতে পারছে না। এমনকি উপজেলা নির্বাচন, ইউনিয়ন নির্বাচনেও ভোটের অধিকার হারাচ্ছে মানুষ।

রাশেদ খান মেনন আরো বলেন, ১৪ দলের পক্ষ থেকে আমাদের নৌকা প্রতীক দিয়েছিল তাদের প্রয়োজনে। তাই মহাজোটের শরিক দল হিসেবে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে হয়েছে। আগামীতে আমরা আর নৌকার সঙ্গে থাকব না। হাতুড়ি প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে লড়ব। সেইভাবেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আমার মন্ত্রিত্বের জন্য কোনো ক্ষোভ নেই। ওয়ার্কার্স পার্টি সব সময় অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলেছে এবং সব সময় বলে যাবে।

তিনি বলেন, সরকারের উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে দেশে লুণ্ঠন, দুর্নীতি মহামারি আকার ধারণ করেছে। একদিকে সরকার উন্নয়ন করছে, অন্যদিকে সরকারের আশপাশের লোকজন দুর্নীতির মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি টাকা লুফে নিচ্ছে। এতে করে সরকারের উন্নয়ন ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে।

ক্যাসিনো পরিচালনাকারীরা অসৎ উদ্দেশ্যে দলে অনুপ্রবেশ করে শত শত কোটি টাকা কামাই করে। খেলাপিরা ঋণের টাকা বিদেশে পাঠিয়ে সেকেন্ড হোম বানিয়েছে। দেশের কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে। এর সঙ্গে যারা জড়িত রয়েছে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনতে হবে।

এতিমের টাকা মেরে দেওয়ার জন্য খালেদার জেল হয়েছে, টাকা পাচার করার অভিযোগে ছেলে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, এখন যারা দুর্নীতি করছে তাদের বিচার কবে করা হবে বলে প্রশ্ন রাখেন তিনি।

ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সভাপতি নজরুল ইসলাম নীলুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জেলা সম্মেলনে বক্তব্য দেন কমরেড আনিছুর রহমান মল্লিক, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. টিপু সুলতান, শান্তি দাস, অধ্যাপক বিশ্বজিৎ বাড়ৈ, শাহজাহান তালুকদার, ফাইজুল হক বাড়ী, এস এম জাকির হোসেন প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা