kalerkantho

শনিবার । ৪ আশ্বিন ১৪২৭। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১ সফর ১৪৪২

জাবি উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ

পাল্টা কর্মসূচি উপাচার্যপন্থীদের

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রনিতিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের অপসারণের দাবিতে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একাংশ। অন্যদিকে, উপাচার্য অপসারণের আন্দোলনকে বিশ্ববিদ্যালয় অস্থিতিশীল করার ‘ষড়যন্ত্র’ উল্লেখ করে মৌন মিছিল ও সমাবেশ করেছেন উপাচার্যপন্থী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

গতকাল বুধবার দুপুরে সমাজবিজ্ঞান অনুষদ থেকে উপাচার্যবিরোধী বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মুরাদ চত্বরে গিয়ে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি, বাম ও আওয়ামী পন্থী (একাংশ) শিক্ষকদের পাশাপাশি আন্দোলন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন, সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, ছাত্র ইউনিয়ন ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাবি শাখার নেতাকর্মীরা।

সমাবেশে আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক মারুফ মোজাম্মেলের সঞ্চালনায় দর্শন বিভাগের অধ্যাপক আনোয়ারুল্লাহ ভুঁইয়া বলেন, ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের আর নৈতিক কোনো অধিকার নেই এই সম্মানিত পদে থাকার। আপনি দুর্নীতির সঙ্গে স্পষ্টভাবে যুক্ত হয়েছেন। এখন নতুন করে দল ভারি করে প্রমাণ করতে চেয়েছেন আপনি দুর্নীতিবাজ নন। উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ে দুর্নীতির রাজত্ব কায়েম করেছেন। শিক্ষকদের সন্তানদের চাকরি আর টাকার লোভ দেখিয়ে উপাচার্য শিক্ষকদের মহাসমাবেশে যুক্ত করেছেন। উপাচার্য এসব কাজ করে ক্ষমতায় টিকতে পারবেন না।’

আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, একই দাবিতে আজ (১৭ অক্টোবর) দুপুরে সংহতি সমাবেশ এবং ১৯ অক্টোবর মশাল মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

অন্যদিকে, দুর্নীতির অভিযোগ তুলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামকে অপসারণের আন্দোলনকে ‘ষড়যন্ত্রমূলক ও ভিত্তিহীন’ দাবি করে মৌন মিছিল ও সমাবেশ করেছেন উপাচার্যপন্থী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

উপাচার্যবিরোধী আন্দোলন প্রতিহত করতে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকদের সদ্যঃগঠিত সংগঠন ‘অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং উন্নয়নের পক্ষে জাহাঙ্গীরনগরের ব্যানারে পূর্বঘোষিত তিন দিনব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই মৌন মিছিল করা হয় বুধবার সকাল ১১টায়। এতে বিভিন্ন বিভাগের তিন শতাধিক শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী অংশগ্রহণ করেন।

সমাবেশে সংগঠনের মুখপাত্র অধ্যাপক আলমগীর কবিরের সঞ্চালনায় উপাচার্যপন্থী শিক্ষকরা উপাচার্যবিরোধী আন্দোলনকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং অযৌক্তিক দাবি করে বলেন, ‘উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতির কল্পিত অভিযোগ এনে বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এটি একটি স্বার্থান্বেষী মহলের ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছুই নয়।’

বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল মান্নান বলেন, ‘আন্দোলনকারীদের তিন দফা দাবির দুটি দাবি উপাচার্য মেনে নেওয়ার পরও কেন তাঁরা আন্দোলন করছেন? আন্দোলনের পেছনে অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে?’

উল্লেখ্য, জাবির অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পে ‘দুর্নীতি ও অনিয়মে’র অভিযোগে প্রায় দুই মাস ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি, বাম ও আওয়ামীপন্থী (একাংশ) শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা