kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

বিটিআরসির রোডম্যাপ

২০২১ সালেই চালু হচ্ছে ফাইভজি

বিশেষ প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে ২০২১ সালেই দেশে উন্নত প্রযুক্তির ফাইভজি মোবাইল ফোন সেবা চালু করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ সরকার। একই বছরে সব বিভাগীয় শহরে, ২০২২ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ জেলা শহর, ২০২৩ সালের মধ্যে সব জেলা শহর এবং ২০২৬ সালের মধ্যে সব উপজেলা, হাইওয়ে ও রেলওয়েতে ফাইভজি সেবা চালু করা হবে। এর আগে ২০২০ সালের শেষ প্রান্তিকে এই সেবার লাইসেন্স দেওয়ার কাজ সম্পন্ন করা হবে।

রাজধানীতে আইইবি মিলনায়তনে গতকাল বুধবার এক সেমিনারে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) পক্ষ থেকে এই প্রাথমিক রোডম্যাপ ঘোষণা করা হয়। সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশে মোবাইল ফোন সেবার টুজি, থ্রিজি ও ফোরজির মান কতটা উন্নত হলো সে চিন্তা-ভাবনার চেয়ে এখন শিল্প বিপ্লবের মহাসড়ক ফাইভজি সেবা যথাসময়ে শুরু করার বিষয়টিই বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছি। কারণ ফাইভজির সঙ্গে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবকে যুক্ত করা হয়েছে। আর এ দুটি বিষয় নিয়ে উন্নত দেশগুলো বিশাল পরিবর্তন প্রত্যাশা করছে।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, এরই মধ্যে ফাইভজি নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটরসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। গাইডলাইন তৈরির কাজ চলছে। এটি সবার মতামত নিয়ে চূড়ান্ত করা হবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘দেশে তৃতীয় সাবমেরিন কেবলের সেবা ২০২৩ সালের প্রথম প্রান্তিকে চালু হবে। ওই বছরের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ উৎক্ষেপণ সম্ভব হবে। আশা করছি ২০২৩ সালের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২, সাবমেরিন কেবল-৩ ও ফাইভজির সক্ষমতা অর্জন করা সম্ভব হবে।’

সেমিনারে বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, ফাইভজি প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষা, যোগাযোগ, চিকিৎসা, শিল্প-পরিবহন ও জাতীয় নিরাপত্তার প্রতিটি ক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তন আসবে।  ফাইভজির মাধ্যমে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ক্লাউড, আইওটির মতো উন্নত প্রযুক্তির সামগ্রিক ব্যবহার বিকাশের পথ উন্মোচন হবে।

বিটিআরসির স্পেকট্রাম বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহীদুল আলম ফাইভজির রোডম্যাপ ঘোষণা করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা