kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

ডাক্তারি পড়তে পারবেন না পাস করা ৭৯ শতাংশ প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে পড়াশোনার চূড়ান্ত চাপ উপেক্ষা করে, নানা ধরনের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, প্রতিযোগিতা ও মেধার লড়াইয়ে জয়ী হয়েছেন তাঁরা।  পাস করেছেন ভর্তি পরীক্ষা। তবু শেষ পর্যন্ত পাস করা প্রায় ৭৯ শতাংশ ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি হতে পারবেন না কোনো মেডিক্যাল কলেজেই। কারণ, সরকারি-বেসরকারি মিলে মাত্র ১০ হাজার ৪০৪টি আসনের বিপরীতে এবার পাস করেছেন ৪৯ হাজার ৪১৩ জন পরীক্ষার্থী (আসনের তুলনায় পাস করেছেন ৭৮.৯৪ শতাংশ বেশি)।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পুরনো ভবনে প্রকাশ করা ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার ফল থেকে এমন চিত্র বেরিয়ে এসেছে। এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে প্রকাশিত এ ফলাফল অনুসারে উত্তীর্ণদের মধ্যে ছেলে ২২ হাজার ৮৮২ (৪৬.৩১ শতাংশ) ও মেয়ে ২৬ হাজার ৫৩১ (৫৩.৬৯ শতাংশ)। তাঁদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৯০.৫ নম্বর পেয়েছেন একজন ছেলে পরীক্ষার্থী। মেয়েদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বরধারী পেয়েছেন ৮৯.৬৯। ভর্তি শুরু হবে ২১ অক্টোবর, চলবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত।

ব্রিফিংয়ে বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব শেখ ইউসুফ হারুন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, ওভারসাইট কমিটির সদস্য কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, বিএমডিসি সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডা. সারফুদ্দিন আহম্মেদ, শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. রুহুল আমীনসহ অন্যরা।

এর আগে গত শুক্রবার দেশব্যাপী একযোগে ১৯টি কেন্দ্রের ৩২টি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত এ ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন ৬৯ হাজার ৪০৫ জন পরীক্ষার্থী। আবেদনকারী ছিলেন ৭২ হাজার ৯২৮। দেশের ৩৬টি সরকারি মেডিক্যাল কলেজে এবার চার হাজার ৬৮টি ও ৭০টি বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ছয় হাজার ৩৩৬টিসহ মোট আসনসংখ্যা ১০ হাজার ৪০৪টি।

উল্লেখ্য, অন্যবারের মতো আট পাতার দীর্ঘ প্রশ্নপত্রের পরিবর্তে এবার কেবল দুই পাতার একটি প্রশ্নপত্রে অনুষ্ঠিত হয় এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা। এ ছাড়া যতজন পরীক্ষার্থী অংশ নেন ঠিক ততটি আলাদা প্রশ্নপত্র ছিল। প্রশ্নপত্র ছাপা ও বহনেও ছিল নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার। ফলে এবার ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে আগের মতো কোনো বিতর্ক ওঠেনি এখন পর্যন্ত।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা