kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

কিশোরগঞ্জে রাষ্ট্রপতি

ইয়াবা রোধ না করলে সব ধ্বংস হয়ে যাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওরাঞ্চল ও কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মদ, জুয়া, চাঁদাবাজিসহ সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি বলেছেন, ‘শুনেছি ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রামে ইয়াবা ঢুকে গেছে। সবাইকে লক্ষ রাখতে হবে যেন এর বিস্তার আর না ঘটে। ইয়াবা রোধ না করলে সব কিছু ধ্বংস হয়ে যাবে।’

গতকাল সোমবার বিকেলে কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রামে নাগরিক কমিটি আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন। হাওরাঞ্চলের শিক্ষার মান নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘হাওরের থানাগুলোতে একসময় স্কুল-কলেজ ছিল না। এখন হাওরের প্রতিটি থানায় এক বা একাধিক স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছি। হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী এসব প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করছে। কিন্তু এখান থেকে বেরিয়ে কেউ বিসিএসে টিকতে পারছে না। এমন হবে কেন?’

হাওরের অষ্টগ্রাম থেকে মিঠামইন হয়ে ইটনা পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ অল অয়েদার রোড (‘আবুরা’ বা উঁচু রাস্তা) করার সময় অধিগ্রহণ করা জমির মালিকদের ক্ষতিপূরণ প্রদানে বিলম্বের উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘অধিগ্রহণের সময় জমির বাজারমূল্য থেকে ক্ষতিপূরণ হিসাবে দেড় গুণ দাম দেওয়ার নিয়ম ছিল। এখন ক্ষতিপূরণ বাবদ তিন গুণ মূল্য পরিশোধ করা হয়। হাওরের মানুষ যেন অধিগ্রহণ করা জমির মূল্য বেশি পায় তা ভেবে দেরিতে ক্ষতিপূরণ পরিশোধের ব্যবস্থা করেছি।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘অষ্টগ্রাম থেকে বাঙ্গালপাড়ার রাস্তা করা হয়েছে। নোয়াগাঁও থেকে চাতলপাড় ব্রিজ হলেই হাওরবাসী সহজে সড়কপথে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যেতে পারবে। দেশের অর্থনীতি যেভাবে এগিয়ে চলেছে, তার ধারাবাহিকতা থাকলে হাওরে একদিন ফ্লাইওভার হবে।’ তিনি বলেন, ‘হাওরের পরিবেশ নষ্ট করা যাবে না। অল অয়েদার রোড ঘেঁষে ঘরবাড়ি ও স্থাপনা করা যাবে না। বাইরের কোনো বড় কম্পানি যেন হাওরে জায়গাজমি কিনতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।’ তিনি কিশোরগঞ্জের হাওরের সব উপজেলায় স্টেডিয়াম, শিল্পকলা একাডেমি ও মডেল মসজিদ নির্মাণের আশ্বাস দেন।

জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘মানুষের সঙ্গে ভাব ধরলে চলবে না। বেটাগিরি দেখানো যাবে না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা