kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

কুমিল্লায় ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

৯ জনের ফাঁসি যাবজ্জীবন ৪ জনের

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর এলাকার ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম সরকারকে (৩৫) হত্যার দায়ে ৯ জনকে ফাঁসি এবং চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তিনজনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. আবদুল হালিম এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন হারুন মিয়া, তাঁর দুই ছেলে মো. সজিব ও মো. রাজিব, আমিন, শাওন, মমিন, রবু, মহসিন ও আবু তাহের। আর যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন মতিন, শাহ পরান, শামীম ও খোকন মিয়া। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন নয়ন মিয়া, মোসলেম মিয়া ও বিল্লাল মিয়া।

ফাঁসির দণ্ডাদেশ পাওয়া মহসিন ও আবু তাহের ছাড়া বাকি সাত আসামি পলাতক। এ ছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে শামীম এবং খালাস পাওয়া আসামিদের মধ্যে নয়ন মিয়া পলাতক।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি আইয়ুব খান কালের কণ্ঠকে বলেন, আসামিদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আনীত ৩০২/৩৪ ধারায় অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৯ আসামিকে ফাঁসি এবং চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে আসামিদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড এবং অনাদায়ে আরো দুই বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

কৌঁসুলি আইয়ুব খান আরো বলেন, আসামিদের সঙ্গে নিহত জাহাঙ্গীর আলম সরকারের যৌথভাবে মাছের প্রকল্প ছিল। সেই প্রকল্প নিয়ে বিরোধ ছিল। একই সঙ্গে সামাজিক কিছু বিষয় নিয়েও বিরোধ ছিল।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ১ ডিসেম্বর রাতে স্থানীয় একটি ওয়াজ মাহফিল থেকে বাড়িতে ফিরছিলেন জাহাঙ্গীর। পথে গৌরীপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পাড়া গ্রামের আবু ইউসুফের বাড়ির সামনে পৌঁছলে জাহাঙ্গীরের বুকের ডান পাশে ছুরিকাঘাত করেন আসামি সজিব। পরে অন্য আসামিরা মিলে কুপিয়ে এবং পিটিয়ে তাঁকে গুরুতর আহত করেন। একপর্যায়ে জাহাঙ্গীরকে মৃত ভেবে ওই স্থানে ফেলে চলে যান আসামিরা। পরে স্থানীয় লোকজন আহত জাহাঙ্গীরকে উদ্ধার করে গৌরীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানকার চিকিৎসক জাহাঙ্গীরকে মৃত ঘোষণা করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা