kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

পারমাণবিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নীতি অনুমোদন

পরমাণু শক্তি কমিশনের অধীনে হবে কম্পানি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পারমাণবিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য একটি কম্পানি গঠনের বিধান রেখে ‘তেজস্ক্রিয় বর্জ্য এবং ব্যবহৃত পারমাণবিক জ্বালানি ব্যবস্থাপনা-বিষয়ক জাতীয় নীতি-২০১৯’ প্রণয়ন করেছে সরকার। এ ছাড়া ‘বাংলাদেশ বাতিঘর আইন-২০১৯’ এবং ‘বাংলাদেশ প্রকৌশল গবেষণা কাউন্সিল আইন-২০১৯’-এর খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তাঁর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার ১৭তম বৈঠকে ওই তিনটি আইন ও নীতির অনুমোদন দেওয়া হয়। মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

মন্ত্রিপরিষদসচিব জানান, পারমাণবিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য পরমাণু শক্তি কমিশনের অধীন একটি কম্পানি গঠনের বিধান রেখে নীতির খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এ জন্য বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন একটি কম্পানি প্রতিষ্ঠা করবে। এটি বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কাজ করবে। সারা বাংলাদেশে যত অ্যাটমিক এনার্জির বর্জ্য পাওয়া যাবে, সেগুলোর ব্যবস্থাপনা তারা করবে।

শফিউল আলম জানান, অ্যাটমিক এনার্জি যেহেতু একটি স্পর্শকাতর ও বিপজ্জনক বিষয়, তাই এটি নিয়ন্ত্রণের জন্য একটা গাইডলাইন দরকার ছিল। পাবনার রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি ইন্টারন্যাশনাল অ্যাটমিক এনার্জি এজেন্সির (আইএইএ) নিয়ম মেনে পরিচালিত হবে। আইএইএর নিয়মের কারণেই ‘তেজস্ক্রিয় বর্জ্য এবং ব্যবহৃত পারমাণবিক জ্বালানি ব্যবস্থাপনা-বিষয়ক জাতীয় নীতি-২০১৯’ শীর্ষক নীতি প্রণয়ন করা হয়েছে।

তিনি জানান, চুক্তি অনুযায়ী রূপপুরের বর্জ্য সরাসরি রাশিয়া নিয়ে যাবে। নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্টের বাইরে চিকিৎসা, শিল্প, খনিজ সম্পদ আহরণ, কৃষি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ গবেষণা, প্রশিক্ষণসহ অন্যান্য ক্ষেত্রেও অ্যাটমিক এনার্জি ব্যবহারসংক্রান্ত বিষয়গুলো এ নীতিমালার আওতায় থাকবে।

মন্ত্রিসভার অভিনন্দন, সন্তোষ : এবার দেশের ৩১ হাজার ৫০০ পূজামণ্ডপে সুন্দরভাবে পূজা উদ্যাপিত হওয়ায় মন্ত্রিসভার পক্ষ থেকে সন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন ও ভাগনি টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিককে অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা। স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার পরিপ্রেক্ষিতে তাঁরা বিভিন্ন জায়গা থেকে যে সম্মাননা ও স্বীকৃতি পেয়েছেন, এর জন্য মন্ত্রিসভার পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয়।

মন্ত্রিপরিষদসচিব জানান, বিশ্বে দীর্ঘতম মেয়াদে শীর্ষ নারী সরকারপ্রধান, ভারতের ড. কালাম স্মৃতি ইন্টারন্যাশনাল এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০১৯, ভ্যাকসিন হিরো সম্মাননা, চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড, কলকাতা এশিয়াটিক সোসাইটির ‘টেগর পিস অ্যাওয়ার্ড’ পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মন্ত্রিসভার পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয়।

এ ছাড়া সায়মা ওয়াজেদ হোসেন বৈশ্বিক মানসিক স্বাস্থ্যে উদ্ভাবনী নারী নেতৃত্বের ১০০ জনের তালিকায় স্থান পাওয়ায় তাঁকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভাগনি ও শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক লন্ডনে সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনীতিবিদদের তালিকায় স্থান পাওয়ায় তাঁকেও অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা