kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ক্যাসিনোর সন্ধানে পুলিশের অভিযান অব্যাহত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জুয়ার আসরের সন্ধানে রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার ফু-ওয়াং ক্লাব, মগবাজারের পিয়াসী বার এবং বাংলামোটরের গোল্ডেন ড্রাগন ও শ্যালেতে অভিযান চালিয়েছে পুলিশ। গতকাল সোমবার বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ক্যাসিনোর কোনো সরঞ্জাম পাওয়া যায়নি। তবে অভিযানকারী পুলিশের দাবি, ক্লাব ও বারে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ জুয়া ও ক্যাসিনো পরিচালনার অভিযোগের ভিত্তিতেই অভিযান চালানো হয়।

ফু-ওয়াং ক্লাবে অভিযানের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল বিকেল ৫টা থেকে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন ঢাকা জেলার ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) আনিসুর রহমান বলেন, ক্লাবটিতে জুয়া ও ক্যাসিনো চালানোর অভিযাগে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সঙ্গে ম্যাজিস্ট্রেটও ছিলেন। তবে ক্লাবটিতে ক্যাসিনোর কোনো সরঞ্জাম পাওয়া যায়নি।

ঢাকা জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, রাজধানীর বিভিন্ন ক্লাবে জুয়া, ক্যাসিনোসহ অবৈধ কাজের অভিযোগে চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে ফু-ওয়াং ক্লাবে অভিযান চালানো হয়। কিন্তু ক্লাবে কোনো খেলোয়াড় বা জুয়া ও ক্যাসিনোর কোনো কিছু পাওয়া যায়নি। সেটির কাগজপত্র রয়েছে বলে তারা তা দেখিয়েছে। বারের পণ্যসামগ্রী বিক্রি বৈধ কি না, তা যাচাই করা হচ্ছে।

ঢাকায় যুবলীগ নেতাদের ‘৬০টি ক্যাসিনো চালানোর’ খবর সংবাদমাধ্যমে আসার পর গত বুধবার র‌্যাব ফকিরাপুল ইয়ংমেনস ক্লাবসহ চারটি ক্লাবে অভিযান চালিয়ে জুয়ার সরঞ্জাম, কয়েক লাখ টাকা ও মদ উদ্ধার করে। অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে ওই ক্লাবের সভাপতি যুবলীগের ঢাকা মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে সেদিন গ্রেপ্তার করা হয়। এর দুই দিনের মাথায় শুক্রবার ঢাকার কলাবাগান ক্রীড়াচক্র ও ধানমণ্ডি ক্লাবেও অভিযান চালায় র‌্যাব। কলাবাগান ক্রীড়াচক্র থেকে ক্লাব সভাপতি কৃষক লীগ নেতা সফিকুল আলম ফিরোজসহ পাঁচজনকে অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর গত রবিবার বিকেলে ঢাকার মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব, দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব ও আরামবাগ ক্রীড়া সংঘে অভিযান চালিয়ে প্রতিটি ক্লাবে ক্যাসিনোর সরঞ্জাম পায় তারা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা