kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রাজশাহীতে জমি দখলে নিয়ে শ্রমিক লীগ নেতার জুয়াঘর

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শ্রমিক লীগ রাজশাহী উন্নয়ন সংস্থা (আরডিএ) ইউনিটের সভাপতি মিলন হোসেনের বিরুদ্ধে সরকারি জমি দখলে নিয়ে ঘর তুলে সেখানে জুয়ার আসর বসানোর অভিযোগ উঠেছে। সেই জুয়াঘরে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবিও টাঙানো হয়েছে। তবে মিলনের রাজনৈতিক পরিচয়ের কারণে ভয়ে কেউ মুখ না খুললেও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চান এলাকাবাসী। মিলন হোসেন নগরীর ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের হাউজিং কোয়ার্টারসংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা। তবে স্থানীয়রা তাঁকে ‘জমির দালাল’ হিসেবেই চেনেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নগরীর ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের হাউসিং কোয়ার্টারের দক্ষিণ-পূর্ব কোণের একটি বিশাল জমি দখল করে সেখানে মিলন একটি টিনের ঘর তৈরি করেছেন। দরজায় আঁকা হয়েছে জাতীয় পতাকা। ঘরের বাইরের দেয়ালে টাঙিয়ে রাখা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি। স্থানীয়দের অভিযোগ, সেখানে রাতের আঁধারে নিয়মিত বসে জুয়ার আড্ডা। ঘরটিতে মিলন হোসেন আগে তাঁর ও সিটি মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের ছবি টানিয়ে রেখেছিলেন। সম্প্রতি সরকারি অভিযানের পর মিলন ছবি দুটি খুলে ফেলেন।

স্থানীয়দের দেওয়া তথ্য মতে, এই কার্যালয় ঘিরে সেখানে এরই মধ্যে আরো কয়েকটি দোকান গড়ে উঠেছে। এর সবই রাস্তাসংলগ্ন জায়গা অবৈধভাবে দখল করে গড়ে তোলা। দিনের আলোতে স্থানটিতে তেমন ভিড় না জমলেও সন্ধ্যার পর থেকেই মোড়টিতে জটলা বাড়তে থাকে। স্থানীয় যুবকদের পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষজন এসে নিয়মিত জুয়ার আসরে বসে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক ব্যবসায়ী জানান, এখান থেকে একটু পাশেই রয়েছে চন্দ্রিমা থানা। অথচ প্রশাসনের নাকের ডগায় বসে এমন অন্যায় কর্মকাণ্ড হচ্ছে। প্রশাসনের নীরবতায় স্থানীয়রাও কাউকে অভিযোগ করতে সাহস পাচ্ছে না।

এদিকে জমি ও মার্কেট দখলের বিষয়টি অস্বীকার করে মিলন হোসেন বলেন, ওই ঘরে স্থানীয় বয়স্করা রাতে আড্ডা দেন। স্থানটি তাঁর দখলে না। চন্দ্রিমা আবাসিকে অবস্থিত মার্কেটে তাঁর দোকান কেনা রয়েছে।

জানতে চাইলে নগরীর চন্দ্রিমা থানার ওসি হুমায়ুন কবির জানান, এ বিষয়ে তাঁদের কাছে কোনো অভিযোগ আসেনি। তবে অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা