kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

প্রাণ থাকতে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হতে দেব না : মমতা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে দিল্লিতে বৈঠকের পর কলকাতায় ফিরেই এনআরসির বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত শুক্রবার তিনি গুজবে কান না দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন, সেই সঙ্গে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, তিনি বেঁচে থাকতে বাংলায় এনআরসি হতে দেবেন না।

প্রধানমন্ত্রী মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) আগে থেকেই বলে আসছে, আসামের মতো পশ্চিমবঙ্গেও সংশোধিত নাগরিক তালিকা তথা এনআরসি করা হবে। সর্বশেষ পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ গত শুক্রবার আবার বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হবেই। তবে সব সময় এর বিপক্ষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা। গত শুক্রবার এনআরসি আতঙ্কে রাজ্যে এক ব্যক্তির আত্মহত্যার খবর সামনে আসার পর তিনি আরো ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

সাংবাদিকদের মমতা বলেছেন, ‘বাংলায় উসকানিমূলক মন্তব্য প্রচার করা হচ্ছে। কিন্তু বাংলার সকল মানুষ নিশ্চিত থাকুন, এখানে এনআরসি হবে না। আমি বেঁচে থাকতে বাংলায় এনআরসি হতে দেব না। গুজবে কান দেবেন না।’

এনআরসি করার ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের ভূমিকা তুলে ধরে মমতা বলেন, ‘এনআরসি করতে গেলে রাজ্য সরকারেরও মতামত লাগে। পশ্চিমবঙ্গে তো আমরা সরকারে রয়েছি। আপনারা ভয় পাবেন না। আমি যখন বলছি, তখন এনআরসি হবে না, হবে না, হবে না। বাংলায় এনআরসি করতে দেব না। আপনাদের কারো গায়ে হাত দিতে গেলে প্রথমে মমতার গায়ে হাত দিতে হবে। আমি আপনাদের পাহারাদার ছিলাম, আছি এবং থাকব।’

রাজ্যবাসীর প্রতি তৃণমূল নেত্রীর পরামর্শ, ‘আপনাদের সবার কাছে কেবল একটাই অনুরোধ—ভোটার তালিকায় আপনাদের নাম আছে কি না, সেটা নিশ্চিত করুন। ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজ চলছে। আপনাদের আর কিচ্ছু করতে হবে না।’ দিল্লিফেরত মমতা আরো বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে মানুষকে আমি নিশ্চয়তা দিচ্ছি, আমার ওপর বিশ্বাস থাকলে এনআরসি নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না। কাউকে পশ্চিমবঙ্গ ছাড়তে হবে না। এত বছর আপনারা যেভাবে ছিলেন, এখনো সেভাবেই থাকবেন।’

গত শুক্রবার সকালে ময়নাগুড়ি রেলগেটের কাছে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় অন্নদা রায়ের দেহ। তাঁর পরিবারের অভিযোগ, এনআরসি আতঙ্কে দিন কাটাতে কাটাতে তিনি না ফেরার দেশে চলে গেছেন। একই আতঙ্কে রাজ্যে আরেকজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আরো বহু মানুষ বর্তমানে এনআরসি আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। এনআরসি আতঙ্কে মৃত্যুর খবর মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পৌঁছলে তিনি এদিন মৃত ব্যক্তিদের পরিবারের জন্য দুই লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ প্রদানের অঙ্গীকার করেছেন। সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা