kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

আওয়ামী লীগের ছাড়ে শঙ্কামুক্ত সাদ, ‘পথের কাঁটা’ আসিফ!

স্বপন চৌধুরী, রংপুর   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আওয়ামী লীগের ছাড়ে শঙ্কামুক্ত সাদ, ‘পথের কাঁটা’ আসিফ!

রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে কৌশলী চালে এক ধাপ এগিয়ে আছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী এরশাদপুত্র রাহগীর আল মাহি সাদ। আওয়ামী লীগ প্রার্থী প্রত্যাহার করায় তিনি অনেকটাই শঙ্কামুক্ত। তবে ‘পথের কাঁটা’ হয়ে মাঠে আছেন এরশাদের ভাতিজা ও সাবেক এমপি হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ। এই বিদ্রোহী প্রার্থীর কারণে সাদের বিজয়ের পথে শঙ্কা দেখছে কেউ কেউ।

এদিকে এই উপনির্বাচনে গতকাল মঙ্গলবার প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হয়েছে। আর প্রার্থীরা সশরীরে উপস্থিত থেকে প্রতীক গ্রহণ করেই প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। তবে জাপার দলীয় প্রতীক লাঙল বরাদ্দ পেলেও প্রার্থী সাদ বা তাঁর অনুসারী কোনো নেতাকর্মী নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন না।

রংপুরের এই আসনে জাতীয় পার্টির পরই রয়েছে আওয়ামী লীগের ভোটব্যাংক। সে হিসাবে এক ও দুই নম্বর অবস্থানে থাকা দুটি দল সমর্থিত প্রার্থী মানসিকভাবেও অনেকটা এগিয়ে থাকবেন বলে ধারণা করছেন নেতাকর্মী-সমর্থকরা। আর বিএনপির অবস্থা এই আসনে কখনোই আশাব্যঞ্জক অবস্থানে ছিল না। প্রতিটি জাতীয় নির্বাচনেই ধানের শীষের ভোটপ্রাপ্তির হার থেকেছে অনেক কম।

জাপার নেতাকর্মীরা মনে করছেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ভোটের মাঠ থেকে সরে যাওয়ায় সাদের বিজয় সহজ হবে। আর রংপুরে জাতীয় পার্টি একাই এক শ। তার ওপর আওয়ামী লীগের বিপুলসংখ্যক সমর্থক যুক্ত হওয়ায় সাদ এখন শঙ্কামুক্ত। ভোটার ও সমর্থকের পাশাপাশি সরকারি দলের সমর্থন থাকায় বাড়তি সুবিধাও পাবেন তিনি। এখানে আসিফ সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারবেন না।

বিদ্রোহী প্রার্থী আসিফের সমর্থকরা বলছেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সরে দাঁড়ানো, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি-এনপিপি বিলুপ্ত করে বিএনপিতে যোগ দেওয়া ‘বহিরাগত’ রিটা রহমানকে বিএনপির প্রার্থী করা এবং তৃণমূলের চাওয়া উপেক্ষা করে বহিরাগত সাদকে মনোনয়ন দেওয়ায় বিশেষ সুবিধা পাবেন আসিফ। বড় তিন দল জাতীয় পার্টি, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ক্ষুব্ধ সমর্থকরা আসিফকেই বেছে নেবে। কারণ রংপুরে এরশাদের মতো অতটা আবেগ তাঁর ছেলের পক্ষে কাজ করবে না।

রিটার্নিং অফিসার ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জি এম সাহাতাব উদ্দিন নিজ কার্যালয়ে গতকাল সকাল ১০টা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেন। বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান উপস্থিত থেকে দলীয় প্রতীক ধানের শীষ বুঝে নেন। এরপর গণফ্রন্টের প্রার্থী কাজী মো. শহিদুল্লাহ (মাছ), খেলাফত মজলিসের প্রার্থী তৌহিদুর রহমান মণ্ডল (দেয়াল ঘড়ি) এবং এনএনপি প্রার্থী শফিউল আলম (আম) প্রতীক গ্রহণ করেন।

অন্যদিকে জাপার বিদ্রোহী প্রার্থী আসিফ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে (মোটরগাড়ি) প্রতীক গ্রহণ করেন। প্রতীক বরাদ্দের সময় সব প্রার্থী উপস্থিত থাকলেও জাপার প্রার্থী সাদ এরশাদ নিজে কিংবা তাঁর দলের কোনো নেতাকর্মী ছিলেন না। তবে রিটার্নিং অফিসার সাদ এরশাদকে দলীয় প্রতীক লাঙল বরাদ্দ দেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা