kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কাস্টমসে নিয়োগের ফাঁদে ৩১ লাখ টাকা হাওয়া

চাকরিতে যোগদান করতে এসে দেখেন সব ভুয়া!

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তিন তরুণের বাড়ি সাতক্ষীরা ও লালমনিরহাটে। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে ‘অফিস সহকারী’ ও ‘অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর’ পদে চাকরি পেতে এই তরুণরা ২০১৮ সালের জুনে চট্টগ্রামে এসে একটি স্কুলে লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন। পরীক্ষায় উত্তীর্ণের ফল চলে যায় তাঁদের গ্রামের ঠিকানায়। এরপর মৌখিক পরীক্ষা, এমনকি পুলিশ ভেরিফিকেশন পর্যন্ত করে ফেলা হয়। এরপর জনপ্রতি আট থেকে ১২ লাখ টাকায় চাকরি দেওয়ার দফারফা হয়; টাকাও জমা হয় ‘চাকরিদাতার’ অ্যাকাউন্টে। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের পোস্ট অফিস থেকে স্মারক নম্বরসহ পাঠানো হয় তাঁদের নিয়োগপত্রও। এরপর গতকাল রবিবার সকালে নির্ধারিত সময়ে চাকরিতে যোগদান করতে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে এসে দেখেন সব কিছুই ভুয়া!

বিষয় বুঝতে পেরে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিন তরুণ। তাঁদের একজন মিলন চক্রবর্তী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রতারণায় পড়েছি এখনো আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। কাস্টমসের শীর্ষ কর্তারা বলার পরও আমি পুরো ঘটনা প্রতারণা মেনে নিতে পারছি না।’

কিন্তু ‘নিখুঁত’ এক প্রতারণার শিকার হয়ে ৩১ লাখ টাকা খুইয়েছেন তিন চাকরিপ্রত্যাশী তরুণ। চরম এই প্রতারণার ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসকে ঘিরে। কিন্তু সব কিছুর কারিগর ছিলেন আনোয়ারুল ইসলাম পরিচয়ধারী এক ব্যক্তি। তাঁর বাড়ি নোয়াখালী জেলায় বলে জানা গেছে।

চট্টগ্রাম কাস্টমসের অতিরিক্ত কমিশনার আকবর হোসেন বলেন, ‘কাস্টমসে এ ধরনের কোনো পরীক্ষা হয়নি। নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিও দেওয়া হয়নি।’

বন্দর থানার ওসি সুকান্ত ভট্টাচার্য্য কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এ ধরনের কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। আর যেহেতু প্রতারণা চট্টগ্রামে ঘটেনি সুতরাং সেটি সাতক্ষীরা ও লালমনিরহাট থানায় অভিযোগ করতে হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা