kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জমি নিয়ে বিরোধ

নিকলীতে সালিশে গুলি, আহত ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওরাঞ্চল   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার কারপাশা ইউনিয়নের মজলিশপুর বাজারের একটি সালিস বৈঠকের পর মাতবরদের লক্ষ্য করে প্রকাশ্যে অন্তত চার রাউন্ড গুলিবর্ষণ করেছে সন্ত্রাসীরা। গত শুক্রবার রাতের এ ঘটনায় তিনজন ছররাবিদ্ধসহ চার গ্রামবাসী আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশ গতকাল শনিবার বিপ্লব মিয়া নামের এক সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে।

আহতরা হচ্ছেন ফকিরবাড়ির দুলাল মিয়া, নয়াহাটির সেলিম মিয়া, বড়হাটির ইকবাল হোসেন ও ইসলাম উদ্দিন। এদের মধ্যে প্রথমোক্ত দুজনকে মুমূর্ষু অবস্থায় শুক্রবার রাতেই ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও সালিসানরা জানান, আতকাপাড়া গ্রামের দরিদ্র মিষ্টি ব্যবসায়ী আক্কাস আলীর সঙ্গে বাড়ির সীমানা নিয়ে একই গ্রামের প্রভাবশালী মজনু মিয়ার বিরোধ ছিল। চার-পাঁচ বছর আগে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা দুপক্ষের মধ্যে আপস-মীমাংসা করে দেন। তারপরও মজনু মিয়া আক্কাস আলীর বাড়ির অংশ দখলের চেষ্টা করেন। এ নিয়ে শুক্রবার রাতে নিকলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুস ভূঁইয়া জনির মজলিশপুর বাজারের চেম্বারে সালিসানরা বসেন।

সালিস-বৈঠক সূত্রে জানা যায়, সালিসের সিদ্ধান্ত না মেনে মজনু মিয়ার ছেলে জামান মিয়া সালিসানদের কটুক্তি করেন। পরে এ নিয়ে ক্ষুব্ধ সালিসানরা জামানকে শাসন করতে গেলে জামান বৈঠক ছেড়ে চলে যান। এর কিছুক্ষণ পরই জামান ও তার চাচা বিপ্লবের নেতৃত্বে সাত-আট যুবক আগ্নেয়াস্ত্র হাতে বাজারে প্রবেশ করে সালিসানদের লক্ষ্য করে চার রাউন্ড বন্দুকের গুলি চালায়। এতে দুলাল, সেলিম ও ইকবাল ছররা গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। ওদিকে ইসলাম উদ্দিনকে ছুরিকাঘাত করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বাজিতপুর সার্কেল) মো. আমিনুর রহমান জানান, গুলিবর্ষণের ঘটনায় আক্কাস আলী বাদী হয়ে সাতজনকে আসামি করে একটি মামলা হয়েছে।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা