kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

তিন শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

শিক্ষক ও দুই কিশোর গ্রেপ্তার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মেহেরপুর, জয়পুরহাট ও গাজীপুরে তিন শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জয়পুরহাট ও গাজীপুরের ঘটনায় দুই কিশোর ও এক শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

মেহেরপুর : গত বুধবার বিকেলে মেহেরপুর শহরে এক প্রতিবন্ধী শিশুকে (১০) ধর্ষণে অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম রফিকুল ইসলাম (৬৫)। তিনি বিডিআরের সাবেক সদস্য। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার মেহেরপুর সদর থানায় মামলা করেন শিশুটির মা। রফিকুল ইসলামের বাড়ি শহরের বোসপাড়ায়।

আতঙ্কগ্রস্ত শিশুটি জানায়, সে গাছে পাতা পাড়তে উঠেছিল। তাকে ফুসলিয়ে কিছু খেতে দেওয়ার নাম করে বাসায় ডেকে নিয়ে খাবারের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাওয়ান রফিকুল। এতে সে অচেতন হয়ে পড়লে রফিকুল তাকে ধর্ষণ করেন। ঘটনা কাউকে বললে গলা কেটে নদীতে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেন রফিকুল। বিষয়টি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জানাজানি হলে এলাকাবাসী রফিকুলের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ করে। পুলিশ গিয়ে অভিযুক্তকে শাস্তির আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। বিক্ষোভের আগেই রফিকুল আত্মগোপন করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই পলাশ কুমার রায় জানান, শিশুটির জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে। মেডিক্যাল টেস্টও করানো হয়েছে। আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

জয়পুরহাট : সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়নে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রাতে শিশুটির বাবা জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করেন। অভিযুক্ত চকশ্যাম গ্রামের এক কিশোর (১৬) ও তাকে সহায়তার অভিযোগে নওগাঁর ধামুরহাট উপজেলার পোড়ানগর গ্রামের আরেক কিশোরকে (১২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শিশুটিকে জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জয়পুরহাট সদর থানার ওসি সিদ্দিকুর রহমান জানান, এলাকার ছোট যমুনা নদীতে মাছ ধরার সময় শিশুটিকে এক কিশোর আখক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে। এতে আরেক কিশোর সহযোগিতা করে। পরে শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ি গেলে বিষয়টি জানাজানি হয়। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা অভিযোগ স্বীকার করেছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নির্যাতিত শিশুকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গাজীপুর : গাজীপুর সিটি করপোরেশনের শরীফপুরে গত শনিবার সকালে একটি প্রতিবন্ধী শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় আদর্শ শিশুকানন কিন্ডারগার্টেনের এক শিক্ষক আনোয়ার হোসেনের (২২) বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনায় শিশুটির মা মহানগরের গাছা থানায় মামলা করার পর পুলিশ আনোয়ারকে গ্রেপ্তার করেছে।

থানার ওসি মো. ইসমাইল হোসেন জানান, শিক্ষক আনোয়ার হোসেন শিশুটিকে শ্রেণিকক্ষ থেকে ডেকে শিক্ষক মিলনায়তনে নিয়ে ধর্ষণ করেন। শিশুটি চিৎকার দিলে তিনি মুখ চেপে ধরেন। পরে শিশুটি এক শিক্ষিকাকে বিষয়টি জানায়। শিক্ষিকা কাউকে ঘটনাটি না জানাতে বলে বুঝিয়ে শিশুটিকে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। বাসায় শিশুটির রক্তক্ষরণ হতে দেখে জানতে চাইলে সে ঘটনা খুলে বলে।

শিশুটিকে চিকিৎসা ও শারীরিক পরীক্ষার জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা