kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গাজীপুরে চার লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গাজীপুর মহানগর ও সদর উপজেলা থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় মাজেদা খাতুন নামে এক নারী, এক শিশুসহ চার জনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

গাজীপুর মহানগরের গাছা থানার ওসি মো. ইসমাইল হোসেন জানান, মাজেদা খাতুন দুই ছেলে-মেয়ে নিয়ে নগরের কুনিয়াপাচরের হাফিজুর রহমানের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। স্বামী রুবেল ঢাকার একটি প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা প্রহরী। স্বামীর অনুপস্থিতির সুযোগে মাজেদার সঙ্গে একই বাড়ির তিনতলার ভাড়াটিয়া গার্মেন্ট শ্রমিক অনুপ পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। মাজেদা কয়েক দিন আগে অনুপের কাছে টাকা ধার চান। না দেওয়ায় তাঁদের মধ্যে মনোমালিন্য ও ঝগড়া হয়। গত বুধবার রাতে অনুপ মাজেদার ঘরে যান। গভীর রাতে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে মাজেদাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ ঘরের মেঝেতে ফেলে পালিয়ে যান অনুপ। গতকাল বৃহস্পতিবার ঘটনা জানাজানি হলে সকাল ১১টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। দুপুরে অনুপকে গার্মেন্ট থেকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি মাজেদা বেগমকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

এদিকে বুধবার সন্ধ্যায় নগরের পুবাইল থানার পদহারবাইদ এলাকার একটি ঘর থেকে আব্দুল জলিল (৫০) নামে এক রাজমিস্ত্রির গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাঁর বাড়ি পটুয়াখালীর মহিপুর থানার কুয়াকাটা গ্রামে। তিনি অসুস্থতাজনিত কারণে মারা গেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

অন্যদিকে বুধবার রাতে গাজীপুরের সদর উপজেলার বানিয়াচালা এলাকার একটি ডোবা থেকে উদ্ধার হয় কাইয়ুম ওরফে বাবু (৯) নামে এক শিশুর লাশ। সে ওই এলাকার মো. সোহাগের বাড়ির ভাড়াটে আবদুল মোতালেবের ছেলে। পুলিশের ধারণা, পানিতে ডুবে বাবুর মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে।

অন্যদিকে একই উপজেলার সিংড়াতলী গ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে মারা গেছেন আশরাফুল ইসলাম (৩৫) নামে এক যুবক। তিনি ওই এলাকার মাইনুদ্দিনের ছেলে। জয়দেবপুর থানার ওসি জাহেদুল ইসলাম জানিয়েছেন শিশু বাবু ও আশরাফুলের মৃত্যুর ঘটনায় আলাদা অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা