kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জাতিসংঘের সংস্থা সমর্থন দিক, নইলে দেশ ছাড়ুক

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে ডয়চে ভেলেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর পর্যাপ্ত আন্তর্জাতিক চাপ প্রয়োগ না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। ডয়চে ভেলের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরে বাংলাদেশ যে পরিকল্পনা নিয়েছে, তাতে জাতিসংঘের সংস্থাগুলো সমর্থন দিক, নয়তো দেশ ছেড়ে চলে যাক।

গতকাল ডয়চে ভেলের ওয়েবসাইটে সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়। বেশির ভাগ রোহিঙ্গাই মিয়ানমারে ফিরতে চায় না, সে কারণেই কি তাদের ভাসানচরে সরাতে চাইছেন—এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমার মনে হয় রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠানোর এখনই সময়। তবে ওই দ্বীপে সব রোহিঙ্গাকে পাঠানো সম্ভব নয়। আমরা মাত্র এক লাখ রোহিঙ্গাকে সেখানে পাঠাতে পারি। আমরা তাদের জোর করে পাঠাতে চাই না। আমরা আশা করেছিলাম, তারা স্বেচ্ছায় সেখানে যাবে। দ্বীপে রোহিঙ্গারা অর্থনৈতিক কার্যক্রম চালাতে পারবে। কিন্তু কক্সবাজারে কাজ করা ত্রাণ সংস্থাগুলো ভাসানচরে যেতে চায় না। কক্সবাজারে তারা পাঁচ তারকা হোটেলে থাকতে পারে, তাই তারা অন্য জায়গায় যেতে চায় না। আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থার মধ্যে যারা রোহিঙ্গা ইস্যুকে রাজনীতিকরণ করতে চাইছে আমরা তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি।’

জাতিসংঘের সংস্থাগুলো সরকারের পরিকল্পনা সমর্থন না করলেও কি রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠাবেন—এ প্রশ্নের জবাবে মোমেন বলেন, ‘হ্যাঁ, সম্ভবত। আমরা অনেক লিফলেট, সিডি ও ভিডিও জব্দ করেছি, যেগুলোতে রোহিঙ্গাদের নির্দিষ্ট কিছু দাবি না মানলে মিয়ানমারে ফিরে না যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ কিছু দাবি মানতে রাজি হয়েছে, যেমন—নিরাপত্তা দেওয়া ও চলাফেরার অনুমতি।’

জাতিসংঘের সমর্থন ছাড়া কি বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠাতে পারবে—এ প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা তা করতে পারব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা