kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মহররমের শিরনির নামে কিশোর গ্যাংয়ের চাঁদাবাজি

জহিরুল ইসলাম   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দলের একজনের পরনে ময়লা ছেঁড়া প্যান্ট, গায়ে ছাই রঙের শার্ট আর মাথায় রং করা চুল। অন্যদের চুলও প্রায় একই রকম। চুলের এই বাহার দেখে বোঝার উপায় নেই এদের বয়স এখনো ১৫ পার হয়নি। তবে দক্ষতার সঙ্গে রাস্তার মাঝখানে দাঁড়িয়ে হাতে লাঠি নিয়ে একটার পর একটা যানবাহন থামিয়ে মহররমের শিরনির কথা বলে আদায় করছিল চাঁদা। লেগুনা, অটোরিকশা, প্রাইভেট কার, পিকআপ থেকে শুরু করে কোনো ধরনের যানবাহনই বাদ যায়নি তাদের এই অপতৎপরতা থেকে। এভাবে চাঁদা আদায় করতে গিয়ে রীতিমতো রাস্তায় যানজট সৃষ্টি করে ফেলে তারা।

গতকাল বুধবার দুপুর ১টার দিকে এই দৃশ্য দেখা যায় রাজধানীর লালবাগ এলাকার সেকশন রোডের বাটা মসজিদ স্টাফ কোয়ার্টার মোড় এলাকায়। পরে খবর পেয়ে স্থানীয় নবাবগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা তিনজনকে আটক করে সেলুনে পাঠিয়ে চুল কাটান। সেই সঙ্গে পরিবারের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে সতর্ক করে দেন।

জানা যায়, নামহীন কিশোর গ্যাংয়ের কয়েকজন সদস্যকে দিয়ে মহররমের শিরনির কথা বলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা চাঁদা তোলাচ্ছেন। এঁদের মধ্যে লালবাগ থানা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক ইমরান মজুমদার (৩২) একজন। মহররমকে উপলক্ষ করে এলাকার কিশোরদের দিয়ে কয়েক দিন ধরে চাঁদা তোলাচ্ছিলেন তিনি। যদিও লালবাগের কয়েকজন নেতা দাবি করেন, ইমরান লালবাগ যুবলীগের কোনো কমিটিতে নেই।

দিনের বেলায় কয়েকটি সড়কে আর রাতে ঢোল নিয়ে আশপাশের বাসাবাড়ি ও দোকান থেকে চাঁদা তোলার পর তা চলে যায় ওই নেতার হাতে। বিনিময়ে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের দেওয়া হয় ৫০ থেকে ১০০ টাকা। কিশোর গ্যাংয়ের এই দলে প্রায় ২০ জন জড়িত বলে জানা গেছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এই কিশোর গ্যাংয়ের কয়েকজন সদস্য রসুলবাগ, শহীদনগর, সেকশন, হাজারীবাগসহ আশপাশের এলাকায় থাকে। নিজেদের গ্যাং হিসেবে পরিচয় না দিলেও জাতীয় বিভিন্ন দিবস উপলক্ষে এদের দিয়ে চাঁদা তোলানো হয়। লালবাগের জেএন শাহ রোড, শহীদনগর, বেড়িবাঁধসহ বিভিন্ন এলাকায় সন্ধ্যার পর ঢোল পিটিয়ে কয়েকটি গ্রুপে ভাগ হয়ে চাঁদা আদায় করে এই কিশোর গ্রুপ।

কাদের নির্দেশে চাঁদা তুলছে তারা—এমন প্রশ্নের জবাবে আটক তিন কিশোর একেকবার একেক ধরনের তথ্য দিয়েছে। পরে স্বীকার করে, স্থানীয় ওই যুবলীগ নেতা চাঁদা তুলতে বলেছে। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে ওয়ার্ড যুবলীগের প্রচার সম্পাদক ইমরান এসব অস্বীকার করে বলেন, ‘এদের কারো সঙ্গে আমার যোগাযোগ নেই। এরা এলাকার নষ্ট পোলাপান। আমার নামে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে বাঁচতে চাইছে।’

লালবাগের নবাবগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হান্নান হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এলাকার এই কিশোরদের বিরুদ্ধে আগেও অভিযোগ ছিল। আজ (গতকাল) মহররমের কথা বলে টাকা তোলার সময় তিনজনকে আটক করা হয়। সবার অভিভাবকদের ডেকে মুচলেকা নেওয়া হয়েছে। ছাড়ার আগে সেলুনে পাঠিয়ে রং করা ও লম্বা চুল কেটে দেওয়া হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা