kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

পিবিএসে ‘বঙ্গবন্ধু বুক গ্যালারি ও মঞ্চ’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পিবিএসে ‘বঙ্গবন্ধু বুক গ্যালারি ও মঞ্চ’

রাজধানীর শান্তিনগরে পিবিএসে ‘বঙ্গবন্ধু বুক গ্যালারি ও মঞ্চ’ উদ্বোধন শেষে আমন্ত্রিত অতিথিরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর শান্তিনগরে বইয়ের বিশাল জগত পিবিএস। পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্সের সহযোগী প্রতিষ্ঠান। সেখানকার বড় একটি অংশজুড়ে স্থাপন করা হলো ‘বঙ্গবন্ধু বুক গ্যালারি’। বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে বইয়ের সমারোহ। আছে মঞ্চও। আয়োজকরা জানালেন, গ্যালারিসংলগ্ন মঞ্চে শিশু-কিশোরদের জন্য প্রতি শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই পড়া, কবিতা ও ছড়া আবৃত্তি, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন হবে নিয়মিত। এটি পরিচালনা করবেন সাংস্কৃতিক সংগঠক সঙ্গীতা ইমাম। এ ছাড়া যেকোনো লেখক বা প্রকাশক বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচন ও আলোচনা করতে পারবেন এই মঞ্চে।

গতকাল বুধবার বিকেলে ‘বঙ্গবন্ধু বুক গ্যালারি ও মঞ্চ’র উদ্বোধন করেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর। জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী পর্বে সম্মানিত অতিথি ছিলেন কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম ও বাংলাদেশ পুলিশের ডিআইজি হাবিবুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য দেন পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্সের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান শায়ক। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্সের পরিচালক আবদুল্লাহ আল বাকী। সঞ্চালনা করেন অন্যপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী মাজহারুল ইসলাম।

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, ‘স্বাধীন দেশে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছে—এমন দৃষ্টান্ত পৃথিবীতে আর নেই। বাংলাদেশের ইতিহাসের মধ্যে দুই দশকের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধু নির্বাসিত ছিলেন। তাই বঙ্গবন্ধুকে ভালোভাবে জানার প্রয়োজন রয়েছে। আমাদের কর্তব্য বঙ্গবন্ধু কে ছিলেন, কেন ছিলেন, কী ছিলেন—সেটা জানতে হবে।’

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, তরুণ প্রজন্মের ইতিহাস নিয়েও যেন আগ্রহ কম। তরুণদের এই ইতিহাসবিমুখতা বদলাতে পারে বই পড়ার অভ্যাস। তরুণ, কিশোরদের বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের বই পাঠে সম্মিলিতভাবে উদ্যোগী হতে হবে।

সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রচুর কাজ হচ্ছে ঠিক, কিন্তু তাঁর অনেক কাজ এখনো লিপিবদ্ধ হয়নি। তাঁকে নিরন্তর গবেষণা করে যেতে হবে জাতির জীবনে একটি স্থিতিশীল গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত

করতে হলে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা