kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কাশ্মীর ইস্যুতে একই অবস্থানে বাংলাদেশ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাশ্মীর ইস্যুতে অবস্থান বদলায়নি বাংলাদেশ। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাখদুম শাহ মেহমুদ কোরেশির গত মঙ্গলবারের ফোনালাপসংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি সেদিন সন্ধ্যায় ওই দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রকাশ করে। সেই বিজ্ঞপ্তির বেশির ভাগ জুড়েই ছিল কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য। শুধু শেষ দুটি বাক্যে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে বিরোধ নিষ্পত্তির ওপর জোর দিয়েছেন। দুই মন্ত্রীই যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে সম্মত হয়েছেন।’

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানিয়েছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ফোন করার বিষয়টি পূর্বনির্ধারিত ছিল। আর ফোনালাপ নিয়ে পাকিস্তান যে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে তাতে পাকিস্তানের মনোভাবই প্রকাশ পেয়েছে।

কাশ্মীর ইস্যুতে গত ২১ আগস্ট পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বাংলাদেশের অবস্থান প্রকাশ পেয়েছে। ‘জম্মু ও কাশ্মীরের ব্যাপারে বাংলাদেশের অবস্থান’ শীর্ষক ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, ‘ভারত সরকার কর্তৃক তার দেশের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করার বিষয়কে ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলেই বাংলাদেশ মনে করে। নীতিগতভাবে বাংলাদেশ সব সময়ই বলে আসছে, আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার পাশাপাশি উন্নয়ন সব দেশেরই অগ্রাধিকার হওয়া উচিত।’

জানা গেছে, গত ২১ আগস্টর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে কাশ্মীর ইস্যুতে বাংলাদেশের যে অবস্থান প্রকাশ পেয়েছে সেই অবস্থান অপরিবর্তিত আছে।

কূটনীতিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ ও সাধারণ পরিষদের আসন্ন অধিবেশনগুলোতে পাকিস্তান কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। পাকিস্তান জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলো, বিশেষ করে মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রগুলোর সমর্থন প্রত্যাশা করছে। আর ওই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের সমর্থন চাইতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনকে ফোন করেছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা