kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

উড়োজাহাজ লিজ নিয়ে অনিয়ম

সাময়িক বরখাস্ত দুই কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশের স্বার্থ বিকিয়ে মিসরের বিমান সংস্থা ইজিপ্ট এয়ারের কাছ থেকে ভাড়ায় উড়োজাহাজ আনার ক্ষেত্রে গাফিলতি ও অনিয়মের দায়ে ফাঁসলেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের দুজন কর্মকর্তা। এ জন্য চুক্তিতে নিয়োগ পাওয়া বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের পরিচালক (প্রকৌশল) গ্রুপ ক্যাপ্টেন (অব.) খন্দকার সাজ্জাদুর রহিমের নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে। অন্যদিকে প্রধান প্রকৌশলী (ইঞ্জিনিয়ারিং সার্ভিস) গাজী মাহমুদ ইকবালকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে কুর্মিটোলায় বিমানের প্রধান কার্যালয়ে এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিমান পরিচালনা পর্ষদ।

জানতে চাইলে বিমান পরিচালনা পর্ষদ সদস্য ও বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মহিবুল হক গতকাল বুধবার বিকেলে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ইজিপ্ট এয়ার থেকে বিমান আনায় গাফিলতির অভিযোগে বিমানের দুজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইজিপ্ট এয়ারের আরেকটি বিমান এখনো আছে, যেটা ফেরত দেওয়া হয়নি। এই ফেরত না দেওয়ায় ওনাদের অস্বচ্ছতা, যোগসাজশ ছিল। এ কারণে বিমান বাংলাদেশ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং হচ্ছে। ফেরত দেওয়া বিলম্বিত হওয়ায় ওনাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’  

২০১৪ সালে ৫০ কোটি টাকা অগ্রিম দিয়ে মিসরের ইজিপ্ট এয়ারের কাছ থেকে দুটি বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর উড়োজাহাজ ভাড়ায় এনেছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। দেশের স্বার্থ বিকিয়ে করা ওই ভাড়ার চুক্তির শর্ত ছিল—উড়োজাহাজ দুটিতে যাত্রী পরিবহন করা হোক বা না হোক, মাসে ১০ কোটি টাকা ভাড়া দিতে হবে, সব ধরনের রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় বহন করতে হবে, পাঁচ বছরের আগে চুক্তি বাতিল করা যাবে না, লিজের মেয়াদ শেষে উড়োজাহাজ দুটি আগের অবস্থায় ফেরত দিতে হবে। কিন্তু বিমানবহরে যোগ হওয়ার কয়েক মাসের মধ্যেই এর একটি বিকল হয়ে ভিয়েতনামের একটি বিমানবন্দরে পড়ে আছে। মেরামতের অর্থ জোগান দিতে না পারায় উড়োজাহাজটি ফেলে রাখা হয়েছে।

লিজে আনা দুটি উড়োজাহাজ আনার ক্ষেত্রে বিমান কর্তৃপক্ষের গাফিলতি ছিলো কি না, খতিয়ে দেখা শুরু করেছিল বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। বিমান দুটি ফেরত দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয় মন্ত্রণালয় থেকে। চলতি বছরের ১৬ জুলাই একটি উড়োজাহাজ ইজিপ্ট এয়ারকে ফেরত দেয় বিমান। ফেরত পাঠাতে পাওনা পরিশোধসহ ৪.১ মিলিয়ন ডলার খরচ হয় বিমানের। অন্য উড়োজাহাজটি এখনো ফেরত দিতে পারেনি বিমান।

তৎকালীন বিমানের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দীনের নেতৃত্বাধীন বোর্ড এবং ক্যাপ্টেন শামীম নজরুল চক্রের যোগসাজশে বিমানের ইতিহাসের সবচেয়ে নজিরবিহীন এই ঘটনা ঘটে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা