kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সড়ক ও ট্রাফিক অবকাঠামো গুরুত্ব দিয়ে বাজেট ডিএসসিসির

বরাদ্দ বেড়েছে মশক নিয়ন্ত্রণে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রতিবছরের মতো এবারও সড়ক ও ট্রাফিক অবকাঠামো বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে। সংস্থাটির মোট তিন হাজার ৬৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকার বাজেটের মধ্যে সড়ক ও ট্রাফিক অবকাঠামো খাতটিতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৮৯৬ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। গত অর্থবছরে এই খাতে বরাদ্দ ছিল ৭৪২ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। তবে সরকারি অর্থের ছাড় না হওয়া এবং অনেক প্রকল্প অনুমোদিত না হওয়ার কারণে এক হাজার ৬৯৫ কোটি আট লাখ টাকা খরচ করতে পারেনি ডিএসসিসি।

গতকাল রবিবার নগর ভবনের অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত ডিএসসিসির ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান মেয়র সাঈদ খোকন।

নগরবাসীর ভোগান্তির মধ্যে রাস্তা ও ফুটপাতের বেহাল অন্যতম। এ ছাড়া ট্রাফিক ব্যবস্থার দুর্বলতার কারণে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। তাই এ বছরও সড়ক ও ট্রাফিক অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ ও নির্মাণকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। রাস্তা, ফুটপাত ও নর্দমা নির্মাণের জন্য ৬৬৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা রাখা হয়েছে। এ ছাড়া রাস্তায় বিদ্যুতায়ন ও এলইডি বাতি বসানোর জন্য রাখা হয়েছে ১১০ কোটি টাকা। ব্রিজ ও কালভার্ট নির্মাণের জন্য বরাদ্দ ৫৫ কোটি টাকা। একই সঙ্গে সড়ক খনন এবং ফুট ওভারব্রিজ ও আন্ডার পাস নির্মাণের জন্য ২০ কোটি টাকা করে বরাদ্দ রাখা হয়েছে চলতি অর্থবছরে।

সংবাদ সম্মেলনে ডিএসসিসি মেয়র খোকন বলেন, ‘বিগত চার বছরে সড়ক ও ট্রাফিক অবকাঠামো খাতে বেশ উন্নয়ন হয়েছে। তবে আরো অনেক কাজ করার মতো রয়েছে। তাই ২০১৯-২০ অর্থবছরে খাতটিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।’

বাজেট বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বরাদ্দ রাখা হয়েছে ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ, উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণ খাতে। এতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৫২৬ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়ন খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৫১৫ কোটি টাকা। নাগরিক বিনোদন সুবিধাদি উন্নয়ন খাতে রাখা হয়েছে ২৭১ কোটি ৩০ লাখ টাকা। এ ছাড়া বাস্তবায়িত প্রকল্পের বকেয়া ম্যাচিং ফান্ড হিসেবে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২০১ কোটি টাকা। ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে বাজার নির্মাণ বাবদ।

এদিকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে তিন হাজার ৫৯৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করলেও এক হাজার ৬৯৫ কোটি আট লাখ টাকা খরচ করতে পারেনি ডিএসসিসি। এক হাজার ৯০২ কোটি ৯৫ লাখ টাকার সংশোধিত বাজেট প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।

বরাদ্দ বেড়েছে মশক নিয়ন্ত্রণে : ডেঙ্গু নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়তে হয় ঢাকা সিটির দুই মেয়রকে। সেই সমালোচনার আঁচ লেগেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে। এ বছর মশক নিয়ন্ত্রণ খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৪৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা। গত বছর এই খাতটিতে বরাদ্দ ছিল ২৬ কোটি টাকা। এই অর্থের মধ্যে মশক নিয়ন্ত্রণে ১৯ কোটি ৫২ লাখ টাকা খরচ করতে পেরেছে সংস্থাটি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা