kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

নেদারল্যান্ডসে শ্রদ্ধায় স্মরণ বঙ্গবন্ধুকে

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নেদারল্যান্ডসের বিপুলসংখ্যক কূটনীতিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি তাঁদের গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা ব্যক্ত করেছেন। হেগে বাংলাদেশ দূতাবাস গতকাল শনিবার জানায়, গত বুধবার বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আয়োজিত চিত্রপ্রদর্শনী ‘বঙ্গবন্ধু : ইন রিমেমব্রেন্স’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে তাঁরা শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা প্রদর্শন করেন। ওই প্রদর্শনী গত শুক্রবার পর্যন্ত চলে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ইরান, সৌদি আরব, দক্ষিণ কোরিয়া, কসোভো, নিকারাগুয়া, ভেনিজুয়েলা, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন, আফগানিস্তান, জর্জিয়া, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সুদান, ভ্যাটিকানের রাষ্ট্রদূত, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, স্পেন, অস্ট্রিয়া ও পানামার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালতের (আইসিসি) ট্রাস্ট ফান্ড ফর ভিকটিমসের বোর্ড চেয়ারম্যান ফেলিপ্পি মিচেলিনি ও অন্যান্য বোর্ড সদস্য, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধি, স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী এবং প্রবাসী বাংলাদেশিসহ শতাধিক অতিথিও অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

শান্তি ও ন্যায়বিচারের শহর হিসেবে খ্যাত হেগের বাংলাদেশ দূতাবাস প্রথমবারের মতো আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী, সর্বরী রায় চৌধুরী, মুর্তজা বশীর, আব্দুস সাত্তার, জামাল আহম্মেদ প্রমুখের ৩০টি চিত্রকর্ম নিয়ে ওই প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। এমন আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা করেছে বুড়িগঙ্গা আর্টস অ্যান্ড ক্রাফটস, ঢাকা।

অনুষ্ঠানে ভারতের রাষ্ট্রদূত ভেনু রাজামনি তাঁর বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি হিসেবে অভিহিত করে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার মুহূর্তে তাঁর নিজের স্মৃতিচারণা করেন। মাহেন্দ্রক্ষণটিকে ‘জয় বাংলা’ ক্ষণ হিসেবে অভিহিত করে জানান যে তিনি তখন মাত্র ১১ বছরের এক কিশোর ছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ঘটনাকে ইতিহাসের একটি ‘কালো অধ্যায়’ হিসেবে অভিহিত করে ওই হত্যাকাণ্ড-পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বঙ্গবন্ধুর আরেক কন্যা শেখ রেহানাকে ভারত সরকারের আশ্রয় দেওয়ার কথাও তিনি স্মরণ করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা