kalerkantho

সোমবার । ২৬ আগস্ট ২০১৯। ১১ ভাদ্র ১৪২৬। ২৪ জিলহজ ১৪৪০

ঈদের দিন বৃষ্টি ঝরবে

দিনের তাপমাত্রাও বাড়বে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাত পোহলেই ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ। দিনটি কেমন যাবে, বৃষ্টি হবে নাকি রোদ থাকবে, মুসল্লিদের জানার আগ্রহ ব্যাপক। বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকলে ঈদ নামাজে ছাতা, শামিয়ানা, জায়নামাজসহ আনুষঙ্গিক প্রস্তুতির বিষয় থাকে। আবহাওয়া অফিসের তথ্য বলছে, ঈদের দিন ঢাকায় বৃষ্টি ঝরবে। সকাল থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হবে। সময় যত গড়াবে, বৃষ্টির ধরন পাল্টে মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণও হতে পারে। ঢাকার বাইরেও বলার মতো সুখবর নেই। ময়মনসিংহ, সিলেট, চট্টগ্রাম, বরিশাল বিভাগেও ঈদের দিন বৃষ্টি হবে। রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগেও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটাই বলছে আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস। এদিকে বিদায় নিতে চলেছে শ্রাবণ। বাংলা পঞ্জিকা অনুসারে বর্ষার শেষ মাসটির আর বাকি তিন দিন। গত মঙ্গলবার বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া গভীর নিম্নচাপটি এরই মধ্যে দুর্বল হয়ে গেছে। বাংলাদেশের ওপর মৌসুমি বায়ু তেমন সক্রিয় নেই। বাতাসে জলীয়বাষ্প অনেক বেশি থাকায় রোদের প্রখরতা বাড়বে। আগামী কয়েক দিন তাপমাত্রা ৩৩ থেকে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যেই থাকবে।

আবহাওয়া কর্মকর্তা আবুল কালাম মল্লিক বলেন, বাংলাদেশের ওপর মৌসুমি বায়ু তেমন সক্রিয় না থাকলেও আজ থেকে পরবর্তী তিন দিন মঙ্গলবার পর্যন্ত বৃষ্টি হবে। কোথাও হালকা থেকে মাঝারি আবার কোথাও ভারি বর্ষণও হতে পারে। তবে বৃষ্টি হলেও দুর্যোগের সম্ভাবনা ক্ষীণ। তাই নৌপথে চলাচলে কোনো বিঘ্ন ঘটবে না। সমুদ্রপথেও চলাচলে কোনো সমস্যা হবে না।

আবহাওয়া অফিসের দেওয়া তথ্য মতে, গতকাল শনিবার দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হয়েছে। পটুয়াখালীর খেপুপাড়ায় ৬৭ মিলিমিটার, চট্টগ্রামে ৬৬ মিলিমিটার ও হাতিয়ায় ১০ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। ময়মনসিংহ, সিলেট, চট্টগ্রাম, বরিশাল বিভাগে আজ রবিবার থেকে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। কোথাও কোথাও ভারি বর্ষণও হতে পারে। অবশ্য বাকি বিভাগগুলোতে ভারি বর্ষণের শঙ্কা নেই।

মন্তব্য