kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

দুই জেলায় সর্বহারা পরিচয়ে ২১ শিক্ষকের কাছে চাঁদা দাবি, হত্যার হুমকি

পিরোজপুর ও রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

১১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ‘সর্বহারা পার্টি’ পরিচয় দিয়ে ছয় কলেজশিক্ষকের কাছে চাঁদা দাবি করা হয়েছে। চাঁদা না দিলে শিক্ষক পরিবারকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছে। ভুক্তভোগী শিক্ষকদের পক্ষে মঠবাড়িয়া সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ মো. গোলাম মোস্তফা গতকাল শনিবার নিরাপত্তা ও প্রতিকার চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

থানা ও সংশ্লিষ্ট কলেজ সূত্রে জানা গেছে, মঠবাড়িয়া সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. গোলাম মোস্তফা, সহযোগী অধ্যাপক মো. আসাদুজ্জামান, সহকারী অধ্যাপক মো. আব্দুল জব্বার, অধ্যাপক সঞ্জিৎ বল, পবিত্র কুমার মণ্ডল ও জাহিদুল হাসান আকন সুমনের কাছে কয়েক দফা মোবাইল ফোনে সর্বহারা পরিচয় দিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট শিক্ষক পরিবারের সদস্যদের হত্যার হুমকি দেয় কথিত সর্বহারা।

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া সরকারি কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘এ ঘটনার পর ভুক্তভোগী শিক্ষক ও তাঁর পরিবারের স্বজনরা চরম উৎকণ্ঠার মধ্যে পড়েছে। নিরাপত্তা ও প্রতিকার চেয়ে মঠবাড়িয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।’ এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ আব্দুল্লাহ বলেন, ‘আমরা প্রযুক্তি ব্যবহার করে অনুসন্ধান চালাচ্ছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি সরকারি কলেজের ১৫ শিক্ষকের কাছে মোবাইল ফোনে পুনরায় সর্বহারা পরিচয়ে চাঁদা দাবি ও হত্যার হুমকি প্রদান করা হয়েছে। বালিয়াকান্দি সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অমরেশ চন্দ্র রায় বাদী হয়ে গত বুধবার বালিয়াকান্দি থানায় জিডি করেছেন। এরপর গত শুক্রবার সকালে পুনরায় সব শিক্ষকের কাছে ফোন করে চাঁদা দাবি করা হয়েছে।

বালিয়াকান্দি সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অমরেশ চন্দ্র রায় বলেন, ‘কয়েক দিন ধরে আমাকে ও আমার কলেজের সহকারী অধ্যাপক আতিয়ার রহমান, অধ্যাপক ক্ষিতিশ চন্দ্র বিশ্বাস, অধ্যাপক রিজাউল হক, অধ্যাপক আলীম আল রাজী, প্রভাষক সঞ্জয় কুমার কুণ্ডু, প্রহ্লাদ চন্দ্র সরকার, সিরাজুল ইসলাম, রাজেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, রকিবুল ইসলাম, বিলাশ চন্দ্র বিশ্বাস, সুশীল কুমার বাড়ৈ, তপন কুমার সরকার, বাবুলাল শর্মা, হিসাবরক্ষক বিধান চন্দ  সাহার মোবাইল ফোনে চাঁদা দাবি করে এবং পরিবারের সদস্যসহ জীবননাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। নিরাপত্তাহীনতার কারণে গত বুধবার বালিয়াকান্দি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে।’ বালিয়াকান্দি থানার ডিউটি অফিসার আ. ওয়াদুদ জিডির সত্যতা স্বীকার করেন।

মন্তব্য