kalerkantho

সোমবার । ২১ অক্টোবর ২০১৯। ৫ কাতির্ক ১৪২৬। ২১ সফর ১৪৪১       

ভিজিএফের চাল

‘দলের ভাগ’ নিতে গিয়ে অবরুদ্ধ যুবসংহতি নেতা

নীলফামারী প্রতিনিধি   

৯ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ভিজিএফের চালের ‘দলের ভাগ’ চাওয়ায় প্রায় এক ঘণ্টা অবরুদ্ধ ছিলেন উপজেলা যুবসংহতির সভাপতি এমদাদুল হক। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রণচণ্ডী ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এ ঘটনা ঘটে।

এমদাদুল হক অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধেই চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন।

রণচণ্ডী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান বিমানের ভাষ্য, ঈদ উপলক্ষে ইউনিয়নের পাঁচ হাজার ৫৭৫ দরিদ্র পরিবারের মাঝে ১৫ কেজি করে চাল বিতরণের জন্য সরকার বিশেষ ভিজিএফ প্রদান করে। সুবিধাভোগী নির্বাচনের জন্য জাতীয় পার্টিকে ২০০টি, এর অঙ্গসংগঠন যুবসংহতি ও স্বেচ্ছাসেক পাটিকে ১০০টি করে এবং ছাত্রসমাজের নেতাদের ৫০টি কার্ড দেওয়া হয়। নিয়ম অনুযায়ী কার্ডের এসব সুবিধাভোগী ইউনিয়ন পরিষদে এসে চাল নেওয়ার কথা। কিন্তু উপজেলা যুবসংহতির সভাপতি এমদাদুল হক সুবিধাভোগীদের না এনে ১০০ কার্ডের বিপরীতে চাল দাবি করেন। কিন্তু বিতরণ কাজে নিয়োজিতরা চাল দিতে অস্বীকৃতি জানান। তাতে এমদাদুল ক্ষিপ্ত হয়ে বিতরণ কাজ বন্ধ করে দিলে চাল নিতে আসা ব্যক্তিরা তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে পুলিশ এমদাদুলকে উদ্ধার করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

অভিযোগ অস্বীকার করে এমদাদুল হক বলেন, ‘জাতীয় পার্টির তালিকায় থাকা লোকজনকে চেয়ারম্যান চাল দিচ্ছেন না—এমন খবর পেয়ে আমি সেখানে যাই। এরপর চেয়ারম্যানের লোকজন আমাকে অবরুদ্ধ করে মারধর করে। চাল বিতরণে নিজেদের অনিয়ম ঢাকতে তারা এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। তাদের হামলায় উপজেলা ছাত্রসমাজের সভাপতি সাকির হোসেন আহত হয়েছেন। আমি এ ব্যাপারে মামলা করব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা