kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

অপহৃত ব্যবসায়ীর খোঁজ মেলেনি দেড় মাসেও

সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চাইলেন স্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপহৃত ব্যবসায়ীর খোঁজ মেলেনি দেড় মাসেও

দেড় মাসেও নিখোঁজ হওয়া স্বামী ইসমাইল হোসেন বাতেনকে ফিরে না পেয়ে দ্বিতীয় দফায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন তাঁর স্ত্রী নাসরিন জাহান স্মৃতি। গতকাল বুধবার দুপুরে সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ওই নারী সংবাদ সম্মেলন করেন। একই স্থানে গত ২০ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন স্মৃতি। সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, বাবার হত্যাকারী সন্দেহে এক র‌্যাব কর্মকর্তা তার স্বামী বাতেনকে অপহরণ করেছেন। এ ব্যাপারে স্মৃতি প্রধানমন্ত্রী, র‌্যাবের মহাপরিচালকসহ দায়িত্বশীলদের সহায়তা কামনা করেন। তিনি বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগও করেছেন। তবে র‌্যাবের কর্মকর্তারা বাতেনকে আটকের ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেছেন।

নাসরিন জাহান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তাঁর স্বামী ইসমাইল হোসেন বাতেন (৬০) শাহ আলী মাজার এলাকায় ‘দাদা স মিলে’ কাঠের ব্যবসা করতেন। গত ১৯ জুন সকাল ৯টার দিকে তিনি বাসা থেকে বের হয়ে যান। এরপর আর ঘরে ফেরেননি। এ ঘটনায় শাহ আলী থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি নম্বর-৮৩০) করা হয়।

নাসরিন জাহান স্মৃতি বলেন, ‘৩৫ বছর আগে আমার স্বামীর গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের কুকরারাই এলাকায় সে সময়ের জাগোদল (বিএনপি) নেতা ফয়েজ আহাম্মদ মিন্টু মিয়া নামে একজন খুন হন। সেই মামলায় আসামি করা হলেও আমার স্বামী আদালত থেকে বেকসুর খালাস পান। নিহত মিন্টু মিয়ার ছেলে রাসেল কবীরের সন্দেহ, আমার স্বামীই তাঁর বাবাকে হত্যা করেছে। ২০১৫ সালে মিন্টু মিয়ার বড় ছেলে কাইছার এ হাবিব এবং কৈলাগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া স্বাধীনের পরিকল্পনায় আমার স্বামীর ওপর হামলা হয়। তিনি নিখোঁজ হওয়ার চার-পাঁচ দিন আগে আমাকে বলেছিলেন, রাসেল কবীর বিভিন্ন লোক মাধ্যমে তাঁর বাবার হত্যার প্রতিশোধ নেবে বলে হুমকি দিচ্ছে।’

নাসরিন জাহান স্মৃতি দাবি করেন, মিন্টু মিয়ার ছেলে রাসেল আহাম্মদ কবীর র‌্যাব সদর দপ্তরে কর্মরত আছেন। তিনিই তাঁর স্বামীকে অপহরণ করিয়েছেন। স্বামীর সন্ধান চেয়ে তিনি রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নৌবাহিনী, পুলিশের মহাপরিদর্শক ও র‌্যাবের মহাপরিচালকের কাছে আবেদন করেছেন।

র‌্যাবের মিডিয়া শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এমরানুল হাসান  বলেন, ‘ভুক্তভোগী পরিবার আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমরা ঘটনা খতিয়ে দেখব।’

মিরপুরে,গার্মেন্ট কর্মীদের,সড়ক অবরোধ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা