kalerkantho

সোমবার । ২১ অক্টোবর ২০১৯। ৫ কাতির্ক ১৪২৬। ২১ সফর ১৪৪১       

বেনাপোল কাস্টমের দাবি

আড়াই টন পাউডারের চালানটি ভায়াগ্রাই

বেনাপোল প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুই মাস আগে সোডিয়াম স্টার্চ গ্লাইকোলেট ঘোষণায় ভারত থেকে বেনাপোলে আনা দুই হাজার ৫০০ কেজির (প্রাই আড়াই টন) চালানটি ভায়াগ্রা পাউডারই বলে দাবি করেছেন বেনাপোল শুল্ক কর্মকর্তারা। যার বাজার মূল্য ১২ কোটি ৫০ লাখ টাকার ওপরে বলে জানানো হয়েছে। এ ঘটনায় বেনাপোলের সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ‘সাইনী শিপিং সার্ভিসেস বেনাপোল’-এর লাইসেন্স সাময়িক বাতিল করা হয়েছে। অধিকতর তদন্তের জন্য যুগ্ম কমিশনারের নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার বেনাপোল কাস্টমস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার মো. বেলাল হোসাইন চৌধুরী জানান, অধিকতর নিশ্চিত হওয়ার লক্ষ্যে নমুনা বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) পাঠানো হয়। কিন্তু তাদের রিপোর্টে পণ্যটিকে আমদানিকারকের ঘোষণা অনুযায়ী সোডিয়াম স্টার্চ গ্লাইকোলেট হিসেবে উল্লেখ করা হয়। এরপর আরো পরীক্ষার জন্য নমুনা খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) ও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরে পাঠানো হয়। কুয়েট ও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর পরীক্ষা করে পণ্যটিকে সিলডেনাফিল সাইট্রেট (ভায়াগ্রার মূল উপাদান) হিসেবে রিপোর্ট দেয়। এই রিপোর্ট পাওয়ার পরই অপঘোষণার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। তিনি বলেন, সিলডেনাফিল সাইট্রেট মূলত ওষুধ উৎপাদনকারী শিল্প প্রতিষ্ঠানে কিছু বিশেষ ওষুধের কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। ইদানীং কিছু প্রতিষ্ঠান কোমল পানীয় উৎপাদনে এ পণ্য ব্যবহার করছে এমন অভিযোগ আছে। এ ছাড়া ইউনানি ও আয়ুর্বেদিক যৌন উত্তেজক ওষুধ তৈরিতেও সিলডেনাফিল সাইট্রেট পাউডার ব্যবহার হয়ে থাকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা