kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

আইনমন্ত্রী জানালেন

ইউএনসিএটি বাংলাদেশের রিপোর্টে সন্তুষ্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জেনেভায় জাতিসংঘ নির্যাতনবিরোধী কমিটির (্ইউএনসিএটি) সভায় বাংলাদেশের আইনের শাসন বিষয়ে পেশ করা প্রতিবেদনে তারা সন্তুষ্ট হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে আয়োজিত এক কর্মশালায় আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এ কথা জানান।

বাংলাদেশে শিশু সুরক্ষায় বিচারব্যবস্থার সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় শিশু আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে শিশু আইন প্রণয়ন ও শিশু সুরক্ষার ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার ধাপে ধাপে শিশুদের সুরক্ষার অধিকার নিশ্চিত করছে।’ তিনি বলেন, ‘২০০৯ সালে সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর ২০১০ সালে জাতীয় শিশুশ্রম নির্মূল নীতি প্রণয়ন করে। এরপর ২০১১ সালে জাতীয় শিশু নীতিমালা প্রণীত হয়। ২০১৩ সালে জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদের বিধানাবলি অনুসারে নতুন শিশু আইন ও পরে আইনের কিছু ধারার অস্পষ্টতা দূরীকরণের জন্য ২০১৮ সালে আইনটি সংশোধন করা হয়।’

ইউএনসিএটি সভায় পেশ করা সরকারের প্রতিবেদনের কিছু অংশ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকনের সমালোচনার জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সাংবাদিকদের বলেন, ‘১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী অপরাধীদের বিচার, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার, জেল হত্যা মামলার বিচারসহ দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা, একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার শেষ করেছি। এ রকম সব মামলার বিচার শেষ করেছি। সে ক্ষেত্রে আমি যদি দাবি করি, বাংলাদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য যা যা পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন সেই পদক্ষেপগুলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার  নিয়েছে; তাহলে আমি কি মিথ্যা বলেছি? আপনারা বিচার করুন।’

জেনেভা সম্মেলনের ইতিবাচক দিকগুলোর বিষয়ে আনিসুল হক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমবারের মতো ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৮ সালে ইউনাইটেড নেশনস কনভেনশন এগেইন্সট টর্চারের স্টেট পার্টি হিসেবে বাংলাদেশ স্বাক্ষর করে। এরপর ২০০১ সাল থেকে ওই কমিটিতে (ইউনাইটেড নেশনস কনভেনশন এগেইন্সট টর্চার) যে রিপোর্ট দেওয়ার কথা ছিল তা গত ২০ বছর দেওয়া হয়নি। আমরা এবার সে রিপোর্টটি দিয়েছি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা