kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

ভোগান্তির শঙ্কা প্রবল দুই নৌ রুটে

মানিকগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

৭ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের পারাপারের দুটি নৌপথ পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী। চ্যানেল সরু হয়ে যাওয়া ও তীব্র স্রোতের কারণে এ দুটি রুটে ফেরি চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ফলে দুটি রুটেরই চারটি ঘাটে লেগে থাকছে যানজট। এ অবস্থায় ঈদ যাত্রা উপলক্ষে দুটি রুটেই যানবাহনের চাপ বাড়ছে। ফলে নদী পার হতে গিয়ে বাড়তি ভোগান্তির আশঙ্কা তীব্র হয়ে উঠেছে।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ রুটে স্বাভাবিক সময়ে প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই হাজার যানবাহন পারাপার হয়। ঈদের সময়ে তা প্রায় ৯ হাজারে গিয়ে দাঁড়ায়। কোরবানির ঈদে পশুবাহী ট্রাকের বাড়তি চাপ তো আছেই। এদিকে নদীতে প্রবল স্রোত থাকায় এই রুটে ফেরি চলাচলে বাড়তি সময় লাগছে। ফলে ট্রিপসংখ্যা কমে গেছে। এর ওপর বেশ কয়েকটি ফেরি পুরনো হয়ে যাওয়ায় বিরতিহীন চলতে গিয়ে যেকোনো সময় বিকল হয়ে পড়তে পারে। এ অবস্থায় এই নৌ রুটে ঈদ যাত্রায় ভোগান্তির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তবে ঘাট কর্তৃপক্ষ বলছে, ঈদে যাত্রী ও যানবাহন নির্বিঘ্নে পারাপারের জন্য ইতিমধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। বিকল ফেরিগুলো মেরামত করা হয়েছে। এই রুটে রো রোসহ আরো পাঁচটি ফেরি যুক্ত করে মোট ২০টি ফেরি চলছে। পাশাপাশি যাত্রী পারাপারের জন্য থাকছে ৩৩টি লঞ্চ। এ ছাড়া যানবাহনের বাড়তি চাপ কমাতে ঈদের তিন দিন আগে ও পরে বন্ধ থাকবে পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার।

পাটুরিয়া ঘাট সূত্রে জানা গেছে, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ রুটে ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনসহ বিআইডাব্লিউটিসি ও বিআইডাব্লিউটিএ ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসসহ ছোট গাড়িগুলো বাইপাস সড়ক দিয়ে নির্দিষ্ট পাঁচ নম্বর ঘাট দিয়ে ফেরিতে ওঠার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

শিবালয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এফ এম ফিরোজ মাহমুদ জানান, জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। যাত্রীদের সুবিধার্থে ২০টি শৌচাগার স্থাপন করা হয়েছে। ঘাট এলাকায় অসুস্থ যাত্রীদের জন্য সার্বক্ষণিক চিকিৎসার পাশাপাশি যাত্রী হয়রানি রোধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে

মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম জানান, ঈদ যাত্রায় পাটুরিয়া ঘাটে সাড়ে পাঁচ শতাধিক পুলিশ মোতায়েন থাকবে। গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোয় ১৬টি সিসি ক্যামেরাসহ ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে মানিকগঞ্জের বিভিন্ন পয়েন্টে ১২৮টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। এ ছাড়া ঘাট এলাকা থেকে তিন কিলোমিটার অস্থায়ী ডিভাইডার করে দুই লেনে যানবাহন চলার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এদিকে নাব্য সংকটের কারণে বন্ধ থাকা শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌ রুট গত ২ আগস্ট থেকে বিকল্প পথে সচল হলেও রাতে চলছে সীমিতসংখ্যক ফেরি। বিকল্প চ্যানেলের প্রশস্ততা ও গভীরতা বৃদ্ধি না করায় গন্তব্যে পৌঁছতে একেকটি ফেরির দ্বিগুণ সময় লাগছে। এতে ট্রিপ সংখ্যা কমে গেছে। ফলে ঈদে অতিরিক্ত গাড়ি পারাপারে সমস্যা তীব্র হয়ে উঠতে পারে।

বিআইডাব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের মেরিন ম্যানেজার এ কে এম শাহজাহান খান জানান, নাব্য সংকটের কারণে গত ১ আগস্ট রানিং চ্যানেলে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের আরো ভাটিতে বিকল্প চ্যানেলে গত ২ আগস্ট থেকে ফেরি চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে চ্যানেলটি সরু হওয়ায় দুটি ফেরি একে অপরকে অতিক্রম করতে পারছে না। একটি ফেরি চ্যানেলে ঢুকলে বিপরীত দিক থেকে আসা ফেরিকে অন্য প্রান্তে চ্যানেলের মুখে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। দীর্ঘ দেড় থেকে দুই কিলোমিটার দূরত্বের এই চ্যানেলের মুখে অপেক্ষায় থাকার ফলে ফেরিটি গন্তব্যে পৌঁছতে বাড়তি সময় লাগছে। তিনি আরো জানান, শিমুলিয়া ঘাট থেকে কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া ফেরিটিকে বতর্মান চ্যানেল থেকে আরো প্রায় দেড় কিলোমিটার ভাটিতে গিয়ে নতুন বিকল্প চ্যানেল পাড়ি দিয়ে আবার দেড় কিলোমিটার উজানে উঠে কাঁঠালবাড়ীর পথ ধরতে হচ্ছে। তা ছাড়া দিনের বেলায় ১৮টি ফেরি চলাচল করলেও রাতের বেলায় সরু এই চ্যানেলে ছয়টি ডাম্প ফেরি চলাচল বন্ধ থাকছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা